সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে বখাটের হাতে চিকিৎসক লাঞ্ছিত

রোগী দেখতে বাড়িতে না যাওয়ায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে বখাটের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন এক চিকিৎসক। আজ মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে এই ঘটনা ঘটে।

হাসপাতালের পার্শ্ববর্তী শহরের হাসননগর এলাকার মো. মিজানুর রহমান নামের এক বখাটে সদর হাসপাতালের আবু জাহিদ মাহমুদ নামের এক চিকিৎসককে চড় মেরেছে। এ ঘটনায় বখাটে মিজানুর রহমানকে আটক করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত বখাটে মিজান (২০) শহরের হাসননগরের আরব উল্লাহর ছেলে।

অভিযুক্ত বখাটে মিজান

জানা যায়, ভাই অসুস্থ হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে সদর হাসপাতাল থেকে চিকিৎসককে বাসায় নিতে এসেছিলেন মিজানুর। কিন্তু হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ফেলে বাসায় গিয়ে রোগী দেখতে অস্বীকৃতি জানান চিকিৎসক ডা. আবু জাহিদ মাহমুদ। এ সময় তিনি বলেন, হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ফেলে থেকে বাসায় যাওয়া যাবে না। রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসতে হবে। এরপর সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মিজানুর রহমান তার ভাইকে নিয়ে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসে এবং কর্তব্যরত চিকিৎসক আবু জাহিদ মাহমুদকে লাঞ্ছিত করে।

খবর পেয়ে ঘটনার পরই সকালে সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আনিসুর রহমান হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. রফিকুল ইসলাম ও অন্যান্য চিকিৎসকদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করেন। বৈঠকে অভিযুক্ত যুবকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বখাটে মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন বলেও জানান লাঞ্ছনার শিকার চিকিৎসক আবু জাহিদ মাহমুদ ।

বৈঠক শেষে সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আনিসুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, সকালে এক রোগীর স্বজন এসে জরুরি বিভাগের ডাক্তারকে তার বাসায় নিতে চেয়েছিল। কিন্তু তিনি যাননি বলে ওই রোগীকে নিয়ে হাসপাতালে এসে কর্তব্যরত চিকিৎসককে লাঞ্ছিত করে। এই ঘটনায় আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

লাঞ্ছিত চিকিৎসক ডা. আবু জাহিদ মাহমুদ বলেন, তার কথামত বাসায় গিয়ে রোগী না দেখায় সে আমাকে লাঞ্ছিত করেছে।

হাসপাতালের চিকিৎসক-কর্মচারী লাঞ্ছনার ঘটনা এটিই প্রথম নয়। মিজানুর রহমান এর আগে গত বছরের ৪ ডিসেম্বর রাতে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের শ্রাবন্তী কোচ (২২) নামের এক নার্সের গলায় ছুরিকাঘাত করে আহত করেছিল। সে সময় মিজানের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছিল এবং নার্সরা কর্মবিরতি পালন করেছিলেন।

সুনামগঞ্জমিরর/টিএম

x