১৮ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস আজ বুধবার (১৮ নভেম্বর)। ১৯৬৬ সালের আজকের এই দিনে যাত্রা শুরু হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়টির। দীর্ঘ ৫৪ বছর পূর্ণ করে ৫৫ তে পা রেখেছে দেশের একমাত্র শাটল ট্রেনের প্রতিষ্ঠানটি। ২১ শ’ একর জুড়ে রয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস।

বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস ও অর্থনীতি এই চারটি বিভাগ এবং সাত জন শিক্ষক ও ২০০ শিক্ষার্থী নিয়ে শুরু হওয়া এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে নয়টি অনুষদে রয়েছে ৪৮টি বিভাগ এবং সাতটি ইনস্টিটিউট। বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে শিক্ষার্থী রয়েছে ২৩ হাজার ৫৫৪ জন এবং বিভিন্ন বিভাগে পাঠদান করছেন ৯২৫ জন শিক্ষক।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আটটি ছাত্র ও পাঁচটি ছাত্রী আবাসিক হল রয়েছে এবং একটি হোস্টেল রয়েছে।

ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, বাংলাদেশের স্বাধীনতার সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ সহ দেশের বিভিন্ন আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রাখে চবির ছাত্র, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক, ১২ জন শিক্ষার্থী সহ তিন জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী শহীদ হোন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে রয়েছে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষাধিক বই ও ৪০ হাজার ইবুকের বিরাট এক সংগ্রহ। আছে বাংলা, সংস্কৃত, আরবি, ফারসী, উর্দু ভাষায় লিখিত সুপ্রাচীন সব পান্ডিুলিপি।

১৯৮০ সালে চালু হওয়ার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের প্রধান বাহন হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে শাটল ট্রেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে দুটি শাটল ট্রেন রয়েছে; যা বটতলি রেলওয়ে স্টেশন থেকে চবি রেলওয়ে স্টেশন এবং সেখান থেকে পুনরায় বটতলি রেলওয়ে স্টেশনে যাতায়াত করে। প্রতিটি ট্রেনেই ৯টি করে বগি যুক্ত রয়েছে।

জীববৈচিত্র্যে অনন্য এ বিশ্ববিদ্যালয়। রয়েছে হরিণ, সজারু, বুনো শুকর সহ প্রায় ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী। এছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির সাপ, পাখি ও অস্তন্যপায়ী প্রাণীর বসবাস এই ক্যাম্পাসে।

এছাড়া বিভিন্ন সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, শিক্ষকদের গবেষণাপত্র জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়ে আসছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ‌‌নজরুল ‘গবেষণা কেন্দ্র’ ও ‘জামাল নজরুল ইসলাম গণিত ও ভৌত বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র’ থেকে গবেষণাপত্র এবং চবির নিজস্ব গবেষণা পত্রিকা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় স্টাডিজ, বাংলা বিভাগ থেকে প্রকাশিত পান্ডুলিপি, ইতিহাস বিভাগ থেকে প্রকাশিত ইতিহাস পত্রিকা এবং অর্থনীতি বিভাগ থেকে ইকনমিক ইকো পত্রিকা নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে। বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অগণিত শিক্ষার্থী দেশ বিদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে যোগ্যতার সঙ্গে দ্বায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে।

সৃজন পাল
যুগ্ম বার্তা সম্পাদক, সুনামগঞ্জ মিরর

শেয়ার করুন