Skip to content

এবার বিশ্বম্ভরপুরে ৩০টি মণ্ডপে পূজা হবে

সৃজন পাল, বার্তাকক্ষ, সুনামগঞ্জ মিরর।

কদিন পরই আসছে হিন্দুদের মহোৎসব দুর্গাপূজা। এনিয়ে চলছে প্রস্তুতি। প্রতিবার যেমন পূজার আমেজ থাকে, মহামারী করোনাভাইরাসের জন্য সেটা ক্ষানিকটা কম। তাই উৎসবের প্রস্তুতি কেবল মন্দিরেই দেখা যাচ্ছে। 

সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় আসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজা ৩০টি মন্দিরে অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদ ঘোষিত নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবছর পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য রয়েছে প্রশাসনেরও নজরদারি।

উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নে ১৯টি, পলাশ ইউনিয়নে ৭ টি, বাদাঘাট (দঃ) ইউনিয়নে ৩ ও ধনপুর ইউনিয়নের ১ টিসহ মোট ৩০টি মন্দিরে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন মন্দিরে প্রতিমা নির্মাণসহ প্রস্তুতিমূলক নানা কাজ চলছে। উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সুষ্ঠু-শান্তিপূর্ণভাবে স্বাস্থবিধি মেনে পূজা উদযাপনের লক্ষ্যে এখন থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

এদিকে গত মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সমীর বিশ্বাস উপজেলা সদর কৃষ্ণনগর পূজা মন্দিরে দুর্গা প্রতিমা নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি প্রতিমা শিল্পী
হিমালয় দাশ ও মন্দির কমিটির লোকজনের সাথে কথা বলেন। বিগত কয়েক দফা বন্যায় মন্দির প্রাঙ্গণের মাটি সরে যাওয়ায় মন্দির সংস্কারের আশ্বাস দেন। পরে তিনি ধনপুর ইউনিয়নের কাইতকোনা মন্দিরেও প্রতিমা নির্মান কাজ পরিদর্শন করেন।

এসব মন্দির পরিদর্শনকালে সঙ্গে ছিলেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) স্বজল মোল্লা, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি স্বপন কুমার বর্মন এবং বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ধনপুর ইউনিয়ন শাখার সভাপতি রাকেশ হাজং প্রমুখ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সমীর বিশ্বাস বিগত বছরগুলোর মত এবছরও সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পূূজা উদযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপনে তিনি সকলের সহযোগীতা কামনা করেছেন।

x