Skip to content

"নাশকতার জন্য জামায়াত-শিবির ও বিএনপি দায়ী"

জামায়াত আন্দোলনের নামে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেষ হাসিনা।

শনিবার দুপুরে গাইবান্ধ সার্কিট হাউজে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হামলা ও নাশকতার জন্য জামায়াত-শিবির ও বিএনপি দায়ী। জামায়াত যে আন্দোলন করেছে তা আন্দোলন নয়, তারা আন্দোলনের নামে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছে।

গাইবান্ধায় রাজনৈতিক সহিংসতায় নিহত ও আহতদের পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা দিয়ে তিনি বলেন, সহিংসতায় জড়িতরা যেখানেই থাকুক তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বিমানবাহিনীর একটি হেলিকপ্টারে করে গাইবান্ধা যান। পরে দুপুর দেড়টার দিকে সার্কিট হাউজে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক হামলা ও সহিংসতায় নিহত ও আহতের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে তোরণ-ব্যানার-ফেস্টুনে জেলা শহরটি সাজানো হয়েছে। শেখ হাসিনার নিরাপত্তায় আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছেন।

বিকেলে জেলার শাহ আবদুল হামিদ স্টেডিয়ামে ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী গোবিন্দগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, গাইবান্ধা টেক্সটাইল ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট, প্রতিটি ১ হাজার টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৬টি খাদ্যগুদাম, সাঘাটা, পলাশবাড়ি ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৩১ শয্যার হাসপাতাল ৫০ শয্যায় উন্নীত ও জেলায় ইপিআই স্টোরের উদ্বোধন করবেন।

এছাড়া পলাশবাড়ি ও ফুলছড়ি থানা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমপ্লেক্স, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র, গাইবান্ধা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং গাইবান্ধা শাহ আবদুল হামিদ স্টেডিয়ামের গ্যালারি সম্প্রসারণ, সুন্দরগঞ্জ-চিলমারী সড়কে তিস্তা নদীর উপর ১৪৯০ মিটার পিসি গার্ডার সেতু এবং সাঘাটা উপজেলায় বোনারপাড়া ইউপি অফিস-রামনগর বাজার সড়কে কাটাখালি নদীর উপর ৩৬০ মিটার পিসি গার্ডার সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উন্মোচন করবেন।

এসব উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে প্রধানমন্ত্রী শাহ আবদুল হামিদ স্টেডিয়ামে গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসমাবেশে ভাষণ দেবেন।

x