Skip to content

দিরাই উপজেলা পরিষদ হবে সুশাসনের মডেল : সুরঞ্জিত

অনেক জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলেন আওয়ামীলীগ উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ও সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।

বিকেলে স্থানীয় বালুর মাঠে উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত বিশাল জনসভায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলতাব উদ্দিন ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক রঞ্জন রায়ের নাম ঘোষণা করে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনে একক প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী তৃণমুল নেতাদের নিয়ে জনসভা করে প্রার্থী বাছাই করা হয়েছে। তিনি বলেন, তৃণমুল নেতাদের সিদ্ধান্ত মানতে হবে কারণ তারাই সংগঠনের প্রাণ। সুরঞ্জিত বলেন, প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে, তারা যেমন দলকে ভালবাসেন তেমনি সৎ ও নিষ্ঠাবান, এরা বিজয়ী হলে দিরাই উপজেলা পরিষদ হবে সুশাসনের মডেল। আলেম সমাজের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, অপপ্রচারে কান দেবেন না, আপনাদের প্রতি আওয়ামীলীগ শ্রদ্ধাশীল। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও শ্রদ্ধাশীল। আমরা ধর্ম বিরোধী নই, ধার্মিককে আমরা শ্রদ্ধা করি। সাবেক সংসদ সদস্য নাছির উদ্দিন চৌধুরীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তিনি (নাছির) উপজেলা চেয়ারম্যান থাকাকালে ঘোড়ার চাবুক দিয়ে নির্দয়, নিষ্ঠুরভাবে মানুষ পিঠিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে দূর্নীতি দমনে ৬০/৭০ মামলা হয়েছে, এখন উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী বাছাইয়ের নামে টাকার খেলা শুরু করেছেন। রিটার্নিং অফিসার, গোয়েন্দা সংস্থা ও পুলিশ বাহিনীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমরা যা শুনতেছি, সেদিকে আপনারা নজর দিন, কারণ এটা নির্বাচনী আচরণ বিধি লংঘন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি প্রভাকর চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুবলীগ নেতা বিকাশ রায়ের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌরসভার মেয়র আজিজুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডর আতাউর রহমান, সোহেল আহমদ ছইল মিয়া, জুবায়ের আলম, দখল মিয়া, শফিকুল ইসলাম সফিক, মামুনুর রশিদ, রেজোয়ান খান ও ইসতিয়াক হোসেন মঞ্জু। সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত আরও বলেন, ইবার নাছির মিয়া আমার পকেটে হাত দিছে, আমার দলের কিছু মানুষ নিয়ে উপজেলা নির্বাচন করতে চায়, আমি বলি যার বেহালা তাকেই বাজাতে হয়, নিজের বেহালা অন্যকে দিয়ে বাজালে তখন তা বেহালাও থাকে না, সারিন্দাও থাকে না। উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুসের প্রশংসা করে তিনি বলেন, তিনি ৫টি বছর চেয়ারম্যানি করেছেন, কোনো কলংক তার গায়ে লাগেনি। এ জন্য তাকে নিয়ে আমি গর্ব করি।

x