Skip to content

আগে কৃষিজমি রক্ষা পরে কয়লা উত্তোলন

বড়পুকুড়িয়া কয়লাখনি থেকে এখনই কয়লা উত্তোলন নয়, আগে খাদ্যনিরাপত্তার জন্য কৃষকের জমি রক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে ‘ফাস্ট ট্র্যাক প্রজেক্ট’ মনিটরিং কমিটির সভায় এ কথা বলেন তিনি।

সভা শেষে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ সাংবাদিকদের বলেন, সভায় প্রধানমন্ত্রী এই মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। এর মধ্যে ছিল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন, বড়পুকুরিয়া থেকে কয়লা উত্তোলন, পায়রা বন্দরে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনসহ মন্ত্রণালয়ের নেওয়া বিভিন্ন গুরুত্বপূর্র্ণ প্রকল্প।

প্রধানমন্ত্রী সভাসদদের জানিয়েছেন, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে কয়লা উত্তোলন ভবিষ্যতের ওপর নির্ভর করছে। কয়লা উত্তোলনের জন্য সহজ পদ্ধতিও দেখা হচ্ছে।

জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহী সাংবাদিকদের বলেন, জোট সরকারের সময়ে দেশে বিদ্যুতের উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতিই হয়নি। এই সরকারের সময়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের অনেক পরিবর্তন এসেছে। আগামীতে ১৬ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ১৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি। আগামীতে এর পরিমান ২০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে। এ কারণে বৈদেশিক সাহায্যের অপেক্ষা না করে দেশীয় অর্থায়নে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে জোর দেন তিনি।

এর আগে সকাল ১০টা ৩৭ মিনিটে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময়ে তিনি মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন এবং নিজ দফতরেও কিছুটা সময় কাটান। পরে দুপুর সোয়া ২টায় প্রধানমন্ত্রী দফতর ত্যাগ করেন।

x