Skip to content

উপজেলায় পাল্লা ভারী বিএনপির

দেশব্যাপী অনুষ্ঠিত ৯৭ উপজেলা নির্বাচনে ৯৫টির বেসরকারি ফল পাওয়া গেছে। এতে ৪৪টি উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

এছাড়া চেয়ারম্যান হিসেবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ৩৩, জামায়াত সমর্থিত ১২, জাতীয় পার্টি সমর্থিত ১, জনসংহতি ১, ইউপিডিএফ ১ এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৩ তিনটিতে বিজয়ী হয়েছেন।

বাংলানিউজের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা করেসপন্ডেন্টদের পাঠানো খবর:

মানিকগঞ্জ: মানিকগঞ্জের সবগুলোতে বিএনপি সমর্থিতরা বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে- দৌলতপুরে তোজাম্মেল হক তোজা (আনারস) ৪৫ হাজার ১৪৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

শিবালয়ে আলী আকবর (কাপ-পিরিচ) ৪১ হাজার ৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

সিংগাইরে আবিদুর রহমান রুমান ৬১ হাজার ৭৪৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

সাটুরিয়ায় বসির উদ্দীন ঠাণ্ডু (মোটরসাইকেল) ৩৩ হাজার ৫৮৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

দিনাজপুর: দিনাজপুরের দু’টিতেই বিএনপি সমর্থিতরা বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে খানসামায় শাহ শহীদুজ্জামান (আনারস) নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩৭ হাজার ২০৪ ভোট।

কাহারোলে মামুনুর রশিদ চৌধুরী ৩০ হাজার ৪৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়া দুটোতেই বিএনপি বিজয়ী। এর মধ্যে সদরে জাকির হোসেন। তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ লাখ ৬ হাজার ২৯৫ ভোট।

ভেড়ামারায় তৌহিদুল ইসলাম আলম দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন।

শরীয়তপুর: শরীয়তপুরের ৪ উপজেলার মধ্যে একটিতে বিএনপি পেলেও বাকি তিনটিতেই আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয়েছেন।

বিজয়ীরা হলেন- জাজিরা উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মোবারক আলী (মোটরসাইকেল) ৪৩ হাজার ৬০৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

ভেদরগঞ্জে বিএনপি সমর্থিত আনোয়ার হোসেন মাঝি (দোয়াত-কলম) ৪২ হাজার ৪১৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

ডামুড্যায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত আলমগীর হোসেন (আনারস) ২১ হাজার ১১৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

গোসাইরহাটে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সৈয়দ নাছির উদ্দিন (আনারস) ৪৩ হাজার ৯১২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ: নিকলীতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সাইফুল ইসলাম (কাপপিরিচ) ১৯ হাজার ৮৩৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

বাজিতপুরে সারোয়ার আলম পেয়েছেন ৫১ হাজার ৪৬০ ভোট।

হবিগঞ্জ: বাহুবলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আব্দুল হাই (আনারস) ২৮ হাজার ৬৭১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

মাদবপুরে বিএনপি সমর্থিত সৈয়দ শাহজাহান (আসারস) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ৭২ হাজার ৯২৫।

যশোর: অভয়নগরে বিএনপি সমর্থিত নুরুল হক মোল্লা বাঘা ৬৭ হাজার ২৮৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন।

খাগড়াছড়ি: এই জেলার ছয়টির মধ্যে বিএনপি দুইটি, ইউপিডিএফ দুইটি, আওয়ামী লীগ ও জেএসএস একটি করে জয়ী হয়েছে।

এর মধ্যে রামগড়ে বিএনপি সমর্থিত শহীদুল ইসলাম ভূঁইয়া ফরহাদ (ঘোড়া) ১০ হাজার ৪৫৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

সদরে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ইউপিডিএফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী চঞ্চুমনি চাকমা। মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১৩ হাজার ৪শ ২৫ ভোট।

মানিকছড়িতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মাগ্র্য মারমা দৌয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে ১১ হাজার ৫২১ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

মাটিরাঙ্গায় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা। আনারস প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১৬ হাজার ৯শ ৪৩ ভোট।

মহালছড়িতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন জেএসএস এম এন লারমা গ্রুপের বিমল কান্তি চাকমা। তিনি পেয়েছেন ৮ হাজার ৮৯৯ ভোট।

পানছড়িতে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন ইউপিডিএফ সমর্থিত প্রার্থী সর্বোত্তম চাকমা। কাপ পিরিচ প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১০ হাজার ৭শ ৯৮ ভোট।

মাগুরা: এই জেলায় দুটোতেই বিএনপি সমর্থকরা জয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে শ্রীপুরে বদরুল আলম হিরো বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৩শ ৭৩ ভোট।

সদরে বিএনপি সমর্থিত নাজিম উদ্দিন ৭২ হাজার ৩৪৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

রংপুর: তারাগঞ্জে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিসুর রহমান লিটন (দোয়াত কলম) বিজয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ২৫ হাজার ৯০৬ ভোট।

মিঠাপুকুরে ১ লাখ ২৪হাজার ৯৪৩ ভোট পেয়ে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী অধ্যাপক গোলাম রব্বানী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নরসিংদী: এই জেলায় দুটির মধ্যে একটিতে আওয়ামী লীগ ও অন্যটিতে বিএনপি প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

এর মধ্যে বেলাবতে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আহসান হাবিব বিপ্লব (ঘোড়া) ৩৮ হাজার ৮৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

পলাশে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সৈয়দ জাবেদ (কাপ-পিরিচ) ৩২ হাজার ৭৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

ভোলা: লালমোহনে চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। চেয়ারম্যান হিসেবে অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ (প্রতীক- আনারস) ৭৫ হাজার ৯৩৩ ভোট পেয়েছেন।

গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থক জানে আলম বিরু (মোটরসাইকেল) ৩১ হাজার ৯শ ৮৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

মকসুদপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুজ্জামান শিমুল বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নীলফামারী: এই জেলায় তিনটির মধ্যে দুটিতে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হলেও একটিতে জামায়াত জয়ী হয়েছে।

এর মধ্যে জলঢাকায় জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী সৈয়দ আলী বিজয়ী হয়েছেন। চিংড়িমাছ প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৬৬ হাজার ৬৬২ ভোট।

সৈয়দপুরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত জাওয়াদুল হক সরকার বিজয়ী হয়েছেন। আনারস প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪৩৫ ভোট।

ডিমলায় আওয়ামী লীগের তবিবুল ইসলাম ৩৮ হাজার ৯৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম: এই জেলায় দুটোতেই বিএনপি সমর্থকরা জয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে হাটহাজারীতে মাহবুবুল আলম চৌধুরী ৫১ হাজার ১৪৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে জয়ী হয়েছেন।

মিরসরাইতে নুরুল আমিন (আনারস) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৫৬ হাজার ১৭৯।

সিলেট: সিলেটে ছয়টির মধ্যে বিএনপি ৩, আওয়ামী লীগের ১ ও ২টিতে জামায়াত সমর্থিতরা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

এর মধ্যে বিশ্বনাথে বিএনপির সুহেল আহমদ চৌধুরী ৩২ হাজার ৯৭৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের আব্দুল বাছির ২৫ হাজার ৩২০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

জৈন্তাপুর জামায়াত সমর্থিত জয়নাল আবেদীন ২৩ হাজার ৩৯১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

গোয়াইনঘাটে বিএনপির আব্দুল হাকিম ৪৩ হাজার ৮০৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

জকিগঞ্জে বিএনপি সমর্থিত ইকবাল আহমদ ২৭ হাজার ৪৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

গোলাপগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের নাজমুল ইসলাম (মোটরসাইকেল) বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ২৪ হাজার ৩৬৯।

ঝিনাইদহ: শৈলকুপায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত শিকদার মোশাররফ হোসেন সোনা ১ লাখ ৩৯ হাজার ৩৬৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

সদরে বিএনপি সমর্থিত নাগরিক সমাজের প্রার্থী আব্দুল আলীম এক লাখ পাঁচ হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

কোটচাঁদপুরে জামায়াত নেতা তাজুল ইসলাম ২৬ হাজার ১৫৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।

কালীগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর সিদ্দিক ঠান্ডু ৩৮ হাজার ৫০৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

মৌলভীবাজার: কুলাউড়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগের কামরুল ইসলাম (কাপ পিরিচ) ৪৬ হাজার ১শ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন

রাজবাড়ী: এই জেলায় ২টিতে আওয়ামী লীগ ও একটিতে বিএনপি সমর্থিতরা বিজয়ী হয়েছেন।

এর মধ্যে সদরে চেয়ারম্যান পদে জেলা বিএনপির সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট এমএ খালেক (দোয়াত কলম) ৭৩ হাজার ৮শ ১৬ ভোটে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

পাংশায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক অধ্যাপক ফরিদ হাসান মন্ডল ওদুদ ( আনারস) ৬৩ হাজার ২শ ৫১ ভোটে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

বালিয়াকান্দিতে আবুল কালাম আজাদ ( মোটরসাইকেল) ৪১ হাজার ৯শ ৯৭ ভোটে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

বরিশাল: গৌরনদীতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শাহ আলম খান (আনারস) ৬৮ হাজার ১৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

গাজীপুর: কাপাসিয়া উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী খন্দকার আজিজুর রহমান পেরা আনারস প্রতীকে ৬৭ হাজার ১৯২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

বগুড়া: দুপচাঁচিয়ায় ১৯ দলের প্রার্থী জামায়াত নেতা আব্দুল গণি মণ্ডল (আনারস) জয়লাভ করেছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ৫৮ হাজার ৬০৮টি।

শেরপুরে জামায়াতের সেক্রেটারি দবিবুর রহমান চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকে ৮৩ হাজার ৩৮৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

ধুনটে বেসরকারিভাবে বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থী এ.কে.এম তৌহিদুল আলম মামুন ৫৯ হাজার ৩৪০ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া সারিয়াকান্দি উপজেলায় বিএনপি প্রার্থী মাসুদুর রহমান ৫৩হাজার ৯৬২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

খুলনা: দিঘলিয়ায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী খান নজরুল ইসলাম বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

কয়রায় ৫৩ হাজার ৭৮২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন ১৯ দলীয় জোট সমর্থিত জামায়াত নেতা মাওলানা আ খ ম তমিজ উদ্দিন (ঘোড়া প্রতীক)।

রাজশাহী: মোহনপুরে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি প্রার্থী আবদুস সামাদ (আনারস) ৪৭ হাজার ৩৪৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

গাইবান্ধা: গোবিন্দগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত ফারুক কবির আহম্মেদ (মোটরসাইকেল) ১ লাখ ২০ হাজার ৫৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

সাঘাটায় জাতীয় পার্টি (এরশাদ) সমর্থিত অ্যাডভোকেট এ এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জু (মোটরসাইকেল) ৩২ হাজার ২৬২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

পঞ্চগড়: দেশের ‌উত্তরের এই জেলার চার উপজেলায় দুইটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত এবং বাকি দুইটিতে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিতরা একটি করে জয়ী হয়েছেন।

সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত আনোয়ার সাদাত মোটরসাইকেল প্রতীকে ৩৭ হাজার ৩৬৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।

আটোয়ারীতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে আব্দুর রহমান আব্দার ৩০ হাজার ৮৩৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন।

অন্যদিকে, দেবীগঞ্জে আওয়ামী লীগ সমর্থিত হাসনাত জামান চৌধুরী জর্জ আনারস প্রতীকে ৩৭ হাজার ৯৩৮ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

বোদায় জামায়াত সমর্থিত সফিউল্লাহ সুফি দোয়াত কলম প্রতীকে ৫০ হাজার ৮০৪ ভোট পেয়ে জয়ী হন।

মেহেরপুর: সদরে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মারুফ আহমেদ বিজন ৬৬ হাজার ৯৭৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

কুড়িগ্রাম: এই জেলায় তিনটির মধ্যে দুটিতে বিএনপি এবং একটিতে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয়েছে।

বিএনপি সমর্থিত বিজয়ীরা হচ্ছেন- উলিপুরে হায়দার আলী মিয়া কাপ পিরিচ প্রতীকে ৫৬ হাজার ৫৫৮ ভোটে এবং ফুলবাড়ীতে নজির হোসেন ঘোড়া প্রতীকে ৩২ হাজার ৪৮২ ভোট পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এদিকে, ভুরুঙ্গমারীতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নুর নবী বেসরকারিভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৪৫০।

নওগাঁ: এই জেলার দুই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিএনপি প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে রানীনগরে চেয়ারম্যান পদে আল ফারুক জেমস ও রানীনগরে আব্দুস সাত্তার নান্নু বিজয়ী হয়েছেন।

আল ফারুক জেমস আনারস প্রতীক নিয়ে ৫১ হাজার ৮৯৭ এবং আব্দুস সাত্তার নান্নু ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৫৭ হাজার ৬৭০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।

জামালপুর: সদর উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আমজাদ হোসেন মল্লিক ভোলা ৮৫ হাজার ৬১৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

এই উপজেলার একটি কেন্দ্র স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

সরিষাবাড়ীতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ফরিদুল কবির তালুকদার শামীম ৭৩ হাজার ৬৯৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।

সিরাজগঞ্জ: রায়গঞ্জ উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ভিপি আয়নুল হক ৭২ হাজার ৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মোজাম্মেল হক বকুল (দোয়াত কলম) ১ লাখ ১১ হাজার ১৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ সদরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত রিয়াজ উদ্দিন (আনারস প্রতীক) ৯৩ হাজার ১০৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

নড়াইল: কালিয়ায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শামিম রহমান ৪৮ হাজার ৪৭৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

পাবনা: আটঘরিয়া উপজেলায় ১৯ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থী জামায়াতের মাওলানা জহুরুল ইসলাম ৪০ হাজার ৫১২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।

সুজানগরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আবুল কাশেম ৮০ হাজার ৫৮৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

সাঁথিয়ায় চেয়ারম্যান পদে জামায়াত সমর্থিত ধুলাউড়ি ইউনিয়ন জামায়াতের আমির মাওলানা মোখলেছুর রহমান ঘোড়া মার্কা নিয়ে ৫৪ হাজার ৫৮৯ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

নেত্রকোনা: নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া দুলাল ৬১হাজার ৬৩৩ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।
অন্যদিকে দুর্গাপুর উপজেলায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী এমদাদুল হক আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২৫হাজার ৭১৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

ঢাকা: নবাবগঞ্জে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী খোন্দাকার আবু আশফাক দোয়াত কলম প্রতীকে ৭১ হাজার ৫৪৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

অন্যদিকে দোহারে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী কামরুল হুদা দোয়াত কলম প্রতীকে ৩৮ হাজার ৭৫৪ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান পদে জয়ী নির্বাচিত হয়েছেন।

সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোস্তাকিম বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৫০ হাজার ৭৭৮।

মাদারীপুর: মাদারীপুরের কালকিনিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তৌফিকুজ্জামান শাহীন বেপারী ৬৪ হাজার ৩৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ: নাচোল উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আ. কাদের ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ২৪ হাজার ৯শ ২৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নিবার্চিত হন।

x