Skip to content

ম্যাচ গড়পেটায় রাজি হয়েছিলেন ধোনি!

আইপিএলে ম্যাচ গড়পেটায় এবার সরাসরি উঠে এলো চেন্নাই সুপার কিংস ও ভারতীয় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির নাম! একটি টিভি চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমন দাবি করেন জি সম্পত কুমার। তার দাবি তদন্তে এ কথা স্বীকার করেছেন চেন্নাই সুপার কিংসের সি-ইও গুরুনাথ মায়াপ্পন।

হেডলাইন্স টুডে টিভি চ্যানেলের সাক্ষাৎকারে তিনি পরিষ্কার জানিয়েছেন, ষষ্ঠ আইপিএলে জয়পুরে অনুষ্ঠিত চেন্নাই সুপার কিংস (সিএসকে) ও রাজস্থান রয়্যালসের (আরআর) ম্যাচটি গড়পেটা হয়েছিল। আর একথা স্বীকার করেছেন সিএসকে সি-ইও তথা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট শ্রীনিবাসনের জামাই গুরুনাথ মায়াপ্পন।

সম্পত কুমার জানান, মায়াপ্পন তার বন্ধু বিক্রম আগরওয়ালের সাথে যোগসাজেশে ম্যাচ গড়পেটার স্ক্রিপ্ট তৈরি করে। বুকিদের সাথে কথাও বলাও নিজের দায়িত্বে নেন বিক্রম। বিক্রমের কথা অনুযায়ী দলের অধিনায়োক ধোনি ও আরও কয়েকজন ক্রিকেটারকে গড়পেটায় রাজি করানোর দায়িত্ব নেন মায়াপ্পন নিজেই!

সম্পত কুমার জানিয়েছেন, ‘তদন্তে বিক্রম ম্যাচ গড়াপেটার কথা স্বীকার করে নিয়েছেন ৷ বিক্রম ছিল মায়াপ্পনের ভালো বন্ধু৷ মায়াপ্পন এবং বিক্রম দু’জনে মিলে চেন্নাই- রাজস্থান ম্যাচ গড়াপেটা করেছিল ৷ ১২ মে চেন্নাই- রাজস্থান ম্যাচ ম্যাচ গড়াপেটার বীজ বোনা হয়েছিল অনেক আগেই৷ সম্ভবত ২২ বা ২৩ এপ্রিল৷ এই নিয়ে দু’জনের মধ্যে বিস্তারিত আলোচনা হয়৷ এবং ডিনার পার্টিতেই ধোনিকে ম্যাচ গড়াপেটার প্রস্তাব দেন মায়াপ্পন ৷ ধোনি- রায়না ছাড়াও দলের আরও কয়েকজন ক্রিকেটার মায়াপ্পনের কথায় রাজি হন বলে জানিয়েছে বিক্রম ৷’

১২ মে সোয়াই মান সিং স্টেডিয়ামে চেন্নাই-রাজস্থান ম্যাচ গড়াপেটা করার জন্য ধোনিকে প্রস্তাব দেন মায়াপ্পন ৷ ধোনি ও সুরেশ রায়নাসহ দলের আরও বেশ কয়েকজন প্রথম সারির ক্রিকেটার তার এই প্রস্তাবে রাজি হয়েছেন বলেও বিক্রমকে জানিয়ে দেন শ্রীনির জামাই গুরুনাথ ৷

পুরো পরিকল্পনা অনুসারেই জয়পুরে রাজস্থানের বিরুদ্ধে চেন্নাইকে ১৪০ রানের মধ্যে থাকার জন্য ধোনিকে নির্দেশ দেন গুরুনাথ ৷ সেইমতো ১২.১ ওভারে ২ উইকেটে ৮৬ রানের পর থেকে ধীর গতিতে রান তুলতে থাকেন চেন্নাইয়ের ব্যাটসম্যানেরা ৷ তাই রবীন্দ্র জাদেজার মতো মারকুটে ব্যাটসম্যানও ১৪ বলে ১২ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ শেষ বলে ডোয়েন ব্র্যাভো চার মেরে বসায় চেন্নাই-এর রান ১৪০ পেরিয়ে যায় ৷ যার ফলে প্রচুর টাকার বেটিং হারতে হয় মায়াপ্পনকে ৷ এছাড়াও বলিউডের অভিনেতা বিন্দু দারা সিং-এর সঙ্গে হাত মিলিয়ে ষষ্ঠ আইপিএলে বেশ কিছু ম্যাচে মায়াপ্পন বেটিং করেছিলেন বলে জানা গিয়েছে৷ এবিষয়ে দারা সিং ও মায়াপ্পনের টেলিফোনে কথোপকথন মুম্বাই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের হাতে এসেছে৷

তিন সদস্যের মুদগল কমিটি ইতিমধ্যেই তদন্তের রিপোর্ট সুপ্রিম কোর্টে জমা দিয়েছে৷ অ্যাপেক্স কোর্ট কোনও রায় জানানোর আগে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসায় স্বাভাবিকভাবেই বেশ অস্বস্তিতে শ্রীনি-ধোনি জুটি ৷ ওয়াকিবহাল মহলের ধারনা এশিয়া কাপে সুরেশ রায়নাকে না রাখা এবং চোট দেখিয়ে মহেন্দ্র সিং ধোনিকে বিশ্রাম দেওয়া, এসবই শ্রীনিবাসনের মস্তিস্ক প্রসূত ৷ আগামী ৭ মার্চ মুদগল কমিটির রিপোর্ট নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ জানাবে সু্প্রিম কোর্ট ৷ আইপিএল গড়াপেটা নিয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালত এখন কী রায় দেয়, সেদিকেই তাকিয়ে ক্রিকেট বিশ্ব।

x