Skip to content

যুবলীগের ঝাড়ু মিছিল ও সংবাদ সম্মেলন

সাংসদ অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ’র বিরুদ্ধে রবিবার দুপুরে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। বিক্ষোভ মিছিলে জাতীয় পার্টির সাংসদ পীর ফজলুর রহমানের বিরুদ্ধে শ্লোগান দেয়া হয়। এ সময় নেতা-কর্মীদের হাতে ঝাড়ু ছিল।

শনিবার রাতে শহরের সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তারুণ্যের বসন্ত উৎসব’ শিরোনামে একটি অনুষ্ঠান হয়। এতে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এবং সুনামগঞ্জ সদর আসনের সাংসদ পীর ফজুলর রহমান মিসবাহ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সাংসদ মিসবাহ’র বড় ভাই সাংবাদিক পীর হাবিবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, "সুনামগঞ্জের পাওয়ার স্টেশন বসানোর জমি অধিগ্রহণের নামে বড় ধরনের দূর্নীতির ঘটনা ঘটেছে। সুনামগঞ্জের সম্পদ লুট করে ঢাকায় নিয়ে বিলাসী জীবনযাপন করার সুযোগ কাউকে দেয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, দূর্নীতির টাকায় লন্ডনে মেমসাহেব রেস্টুরেন্টে শেয়ার কেনা হয়েছে।
পীর হাবিবুর রহমান স্পষ্টকণ্ঠে বলেন, জনগণকে দেয়া অঙ্গীকার রক্ষার পথ থেকে বিচ্যুত হলে তিনি ছোটভাই সাংসদ পীর মিসবাহর সাথেও থাকবেন না। তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ আমলে ফেনসিডিল নিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া আর ভারতীয় অবৈধ চোরাই মদের ব্যবসায়ীদের ডানে-বামে রেখে চলা আর যাই হোক, নান্দনিক সুনামগঞ্জে হয় না।"

যুবলীগ নেতাকর্মীদের দাবী, পীর হাবিব এ বক্তব্য দিয়েছেন ব্যরিস্টার এম এনামুল কবীর ইমনকে উদ্দেশ্য করে।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে শহরের আলফাত স্কয়ারে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন অ্যাডভোকেট মাজহারুল ইসলাম, গিয়াস উদ্দিন মারুফ ,আবু হাসান লালন, জুবের আহমেদ, সেলিম রেজা, শাহ আলী আকবর জমিরুল হক পৌরভ ও জেলা জাতীয় পার্টির প্রচার সম্পাদক গোলাম হোসেন অভি প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্র লীগ নেতা সাজিদুর রহমান তায়েফ, শিহাব আহসান, ফারুক আহমদ সুজন, রাজীব সেন, আহমেদ আলাদীন রকি, মোহাইমিনুল শিমুল, ইউএম নাবিল, তৌফিক ফয়সল প্রমুখ।

পরে বিকালে শহরের উকিল পাড়ায় যুবলীগের দলীয় কার্যালয়ে যুবলীগের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলন করে একইভাবে প্রতিবাদ জানান নেতা-কর্মীরা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন যুবলীগের সদস্য গিয়াস উদ্দিন মারুফ ও আবদুল আজাদ।

এ প্রসঙ্গে সাংসদ পীর ফজলুর রহমান বলেছেন,‘মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তারুণ্যের বসন্ত উৎসব আয়োজন করা হয়েছিল। এতে দেশবরেণ্য অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন। আমরা কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে নয়, কথা বলেছি মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। এতে কেউ আহত হয়ে থাকলে আমাদের করার কিছু নেই। তবে মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির পক্ষ নিয়ে যদি কেউ বিক্ষোভ মিছিল করে তাহলে এর সব দায় দায়িত্ব তাদেরকেই নিতে হবে।’

x