Skip to content

‘খোড়া গণতন্ত্রকে ‘সুস্থ গণতন্ত্র’ করতে হবে’

বর্তমানে দেশের গণতন্ত্র এখনো খোড়া হয়ে রয়েছে। আর এই ‘খোড়া গণতন্ত্র’কে ‘সুস্থ গণতন্ত্র’-এ পরিণত করার জন্য নারী, শিশু ও কন্যাশিশুদের অধিকার আদায়ে কাজ করতে হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে অপরাজেয় বাংলাদেশ আয়োজিত ‘নারীর প্রতি সমতা: সমৃদ্ধি জাতির নিশ্চয়তা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, একটি দেশের নারী, শিশু ও কন্যাশিশুদের অধিকার যদি বাস্তবায়ন করা না যায়, তাহলে সে দেশের গণতন্ত্র পরিপূর্ণ হয় না। তাই, দেশে পূর্ণ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করতে আমাদের কাজ করতে হবে।

গণমাধ্যমের উদ্দেশে তিনি বলেন, সংবাদমাধ্যম মানুষ, সরকারকে সচেতন করে সক্রিয় হতে সাহায্য করে। কিন্তু, সংবাদমাধ্যমকে কীভাবে এ বিষয়গুলোতে সক্রিয় করা যায়, সে জন্য আমাদের সক্রিয় হতে হবে। সংবাদমাধ্যমে শুধু গদবাঁধা সংবাদ পরিবেশন করলেই চলবে না, নারী, শিশু ও কন্যাশিশুদের অধিকারের কথা দেশের আইনে কী বলা আছে, সংবিধানে কী আছে, জাতিসংঘের সনদে কী আছে, সেগুলো সাধারণ মানুষকে জানাতে সাহায্য করতে হবে।

সমাজে নারী, শিশু, কন্যাশিশুদের প্রতি নির্যাতন সহিংসতা প্রতিরোধে সংবাদমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, সরকারের একার পক্ষে এ কাজ করা সম্ভব নয়। এ জন্য সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন এনজিও এবং সংবাদমাধ্যম এই তিন পক্ষকে একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করলেই নারী ও শিশুদের অধিকার রক্ষা করা যাবে। অন্যায়কারীদের ধরে লজ্জা ও শাস্তি দেওয়া যাবে।

অনুষ্ঠানে ২০১৩ সালে কন্যাশিশু ও যুব নারীদের প্রতি সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন ও সব বৈষম্য দূর এবং নারী ও শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সংবাদমাধ্যমের যে সব সাংবাদিক বিভিন্ন সময়ে কলাম, ফিচার ও রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন, তাদের কাছ থেকে লেখা আহ্বান করে ১৩ জনের মধ্য থেকে জুরি বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মোট তিনজনকে ‘অপরাজেয় সম্মাননা-২০১৪’ প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বিজয়ীদের হাতে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট এবং নগদ অর্থের চেক তুলে দেন।

সম্মাননা ২০১৪-তে প্রথম হয়েছেন দৈনিক ইংরেজি পত্রিকা দ্য ডেইলি স্টারের আবুল কালাম আজাদ, দ্বিতীয় হয়েছেন এটিএন বাংলার শিশুসাংবাদিক মামুন বকাউল, তৃতীয় হয়েছেন এবিসি রেডিওর শাহনাজ শারমিন।

সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক ওয়াহিদ বানুর সভাপতিত্বে সম্মাননা অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তারিক-উল-ইসলাম, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল, বাংলাদেশের কান্ট্রি ডাইরেক্টর মিস সিনায়েত, অপরাজেয় বাংলার টেকনিক্যাল অফিসার মোহাম্মদ হুমায়ূণ কবীর প্রমুখ।

x