Skip to content

উপগ্রহের চিত্র ‘বিশ্বাসযোগ্য অগ্রগতি’: মালয়েশিয়া

অস্ট্রেলিয়ার উপগ্রহের চিত্রে দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে দু’টি বস্তু ধরা পড়ার ঘটনাকে ‘বিশ্বাসযোগ্য অগ্রগতি’ হিসেবে দেখছে মালয়েশিয়া।

বৃহস্পতিবার কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে দেশটির পরিবহনমন্ত্রী হিশামুদ্দীন হুসেইন সাংবাদিকদের বলেন, অস্ট্রেলিয়ার উপগ্রহে ভারত মহাসাগরে বস্তু চিহ্নিত হওয়ার ঘটনা নিখোঁজ ২৩৯ জন যাত্রীবাহী উড়োজাহাজের সন্ধানে চলমান অনুসন্ধান কার্যক্রমে ‘বিশ্বাসযোগ্য অগ্রগতি’।

তিনি বলেন, আমরা এখন বিশ্বাসযোগ্য অগ্রগতির পথে আছি। উপগ্রহে দু’টি বস্তু চিহ্নিত হওয়ার খবর পাওয়ার পর এ ব্যাপারে যাচাই-বাছাই করা দরকার আমাদের।

এছাড়া, নিখোঁজ উড়োজাহাজের খোঁজে অনুসন্ধান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলেও জানান পরিবহনমন্ত্রী।

দক্ষিণ ভারত মহাসাগর থেকে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া পর্যন্ত অঞ্চলে ২৬টি দেশ অনুসন্ধান কার্য চালাচ্ছে।

হিশামুদ্দীন বলেন, এমএইচ৩৭০ এর অবস্থান নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অনুসন্ধান কার্যক্রম চলবে।

এদিকে, উপগ্রহে ধরা পড়া দু’টি ‘ধ্বংসাবশেষ’র তথ্য সংগ্রহের জন্য ভারত মহাসাগরের দক্ষিণাংশে বিশেষ ধরনের উড়োজাহাজ ‘ওরিয়ন’ পাঠিয়ে অনুসন্ধান চালাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া।

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার সমুদ্র নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র জন ইয়াং জানান, উপগ্রহ থেকে নেওয়া ছবিতে পার্থ থেকে দুই হাজার পাঁচশ’ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ‘ধ্বংসাবশেষ’ দুটি দেখা গেছে। উপগ্রহ থেকে পাওয়া চিত্রের উপর ভিত্তি করে অনুসন্ধান কার্যক্রম চলছে।

জন ইয়াং জানান, যে দু’টি বস্তু চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো উড়োজাহাজেরই ধ্বংসাবশেষ বলে মনে করা হচ্ছে। একটির আকার ২৪ মিটার (৭৮.৮ ফুট) লম্বা। অপরটি এর চেয়ে খানিকটা ছোট।

তিনি জানান, উপগ্রহের চিত্রে ভারত মহাসাগরের দক্ষিণাংশে পার্থের জলসীমায় দু’টি বস্তু দেখা গেছে। যা নিখোঁজ মালয়েশীয় উড়োজাহাজের হতে পারে। তবে এগুলো নিখোঁজ উড়োজাহাজের কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

গভীর সমুদ্রে প্রচণ্ড ঢেউয়ের কারণে বস্তু দুটি একবার ভেসে উঠছে আবার ডুবে যাচ্ছে বলে কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সংবাদ মাধ্যমগুলো জানাচ্ছে।

এর আগে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট সংসদে জানান, অস্ট্রেলিয়ার সমুদ্র নিরাপত্তা বিষয়ক কর্তৃপক্ষ উপগ্রহে ধরা পড়া দু’টি চিত্র দেখতে পায়। এরপর গবেষকদের দিয়ে তা পরীক্ষা করানো হয়।

তিনি বলেন, আমরা সবাই জানি যে, বিষয়টি অত্যন্ত জটিল। সন্ধান পাওয়া ‘ধ্বংসাবশেষ’ দু’টি নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানের নাও হতে পারে।

‘আমি এরই মধ্যে এ ব্যাপারে মালয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট নাজিব রাজাককে অবগত করেছি’-জানান অ্যাবোট।

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ৩৭০ উড়োজাহাজটি ৭ মার্চ রাতে মালয়েশিয়া থেকে ২২৭ জন যাত্রী ও ১২ জন ক্রুসহ চীনের উদ্দেশে রওয়ানার হওয়ার ৪০ মিনিটের মধ্যে নিখোঁজ হয়। তারপর থেকে সমুদ্রে ও স্থলে এর খোঁজে তৎপরতা চালাচ্ছে বিভিন্ন দেশ।

x