নুতন করে অনুসন্ধান চলছে

মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানটির হদিস পেতে যা যা করা সম্ভব সবই করা হবে বলে অঙ্গীকার করেছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট। দেশটির প্রধানন্ত্রীর এ বক্তব্যের পর শুক্রবার নতুন করে ভারত মহাসাগরে ব্যাপকভাবে অনুসন্ধান কাজ শুরু হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়ার দপ্তরের পূর্বাভাস প্রদানকারী কর্মকর্তারা জানান, সাগরের অনুসন্ধান এলাকায় আবহাওয়া বেশ অনুকূলে চলে আসেছ। এতে করে তল্লাশির কাজ করা অনেক বেশি সুবিধাজনক হবে। এএফপি।

এর আগে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে বিমানটির তল্লাশি কাজ স্থগিত করা হয়েছিল।

বিমানটি হারিয়ে যাওয়ার ১৩ দিন পর বৃহস্পতিবার সর্বশেষ ভারত মহাসাগরে স্যাটেলাইটে ধারণ করা চিত্রে দুটি বিধ্বস্তের বস্তু ধরা পড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে বস্তু দুটি মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের নিখোঁজ এমএইচ ৩৭০ বিমানের ধ্বংসাবশেষ হতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবট পার্লামেন্টে বলেন, ওই দুটি বস্তু নিখোঁজ বিমানটিরই ধ্বংসাবশেষ কি না, এ ব্যাপারে নিশ্চিত হতে জোর অনুসন্ধান চলছে। বিমানটি খুঁজে পেতে মানুষের পক্ষে যা যা করা সম্ভব সবই করা হবে বলে এ সময় তিনি অঙ্গীকার করেন।

পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রীর এ অঙ্গীকারের পর অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্রের চারটি বিমান পার্থের দুই হাজার ৫০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ভারত মহাসাগরে ২৩ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিমানটির অনুসন্ধান চালিয়েছে।

নিচের দিকে মেঘ থাকায় ওই সব বিমান থেকে উল্লেখযোগ্য তেমন কিছু দেখা যায়নি। সাগরের ওই অংশে নরওয়ের একটি জাহাজও রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের এয়ার কমান্ডার মাইক ইয়ার্ডলে বলেন, “আমাদের ক্রুরা সাগর থেকে কিছু ধ্বংসাবশেষ তুলেছেন। তবে তা নিখোঁজ বিমানের নয়।”

গত ৮ মার্চ কুয়ালালামপুর থেকে মালয়েশিয়া এয়ালাইন্সের এমএইচ ৩৭০ ফ্লাইট চীনের বেইজিংয়ের উদ্দেশে যাত্রা করে। এর ঘণ্টাখানিকের মধ্যে বিমানটি রাডার যোগাযোগ থেকে হারিয়ে যায়।

এখন পর্যন্ত বিমানটির কোনো সন্ধান না পাওয়ায় বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ বাড়ছে। বিশেষ করে নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনদের মধ্যে মারাত্মক উৎকণ্ঠা তৈরি হয়েছে।

x