Skip to content

বিমানের সম্ভাব্য ধ্বংসাবশেষ উদ্ধারে অস্ট্রেলিয় জাহাজ

মালয়েশিয়ার নিখোঁজ হওয়া বিমানের সম্ভাব্য ধ্বংসাবশেষ উদ্ধারে জাহাজ পাঠিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে তল্লাশি অভিযানে নিয়োজিত এক অস্ট্রেলিয় বিমানের ক্রুরা সোমবার এর আগে দেখা সমুদ্রে ভাসমান দু’টি বস্তুর অবস্থান নিশ্চিতভাবে নির্ণয় করার পর এ পদক্ষেপ নিল অস্ট্রেলিয়া।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টনি এ্যাবট সোমবার বলেছেন, ওই বস্তু দুটি নিখোঁজ হওয়া মালয়েশিয় বিমানের কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য বিষয়টি খতিয়ে দেখতে একটি উদ্ধারকারী জাহাজ পাঠানো হবে। এদিকে মালয়েশিয়ার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ওই বস্তুগুলির কাছে পৌঁছানো সম্ভব।

সোমবার সন্ধ্যায় অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী দেশটির সংসদে বলেন, ‘দক্ষিণ ভারত মহাসাগরে তল্লাশি অভিযানে নিয়োজিত অস্ট্রেলিয় অরিয়ন বিমানের ক্রুরা জানিয়েছেন তারা সমুদ্রে ভাসমান দুটি বস্তুর অবস্থান নির্ণয় করেছেন। এর একটি ধূসর বা সবুজ রঙ্গের গোলাকৃতি বস্তু, অপরটি কমলা রঙ্গের আয়তাকার বস্তু।’

চীনা বিমান থেকে দেখা বস্তুগুলো থেকে এগুলো একদমই আলাদা বলেও জানা গেছে।

এইচএমএএস সাকসেস নামে এক অস্ট্রেলিয় উদ্ধারকারী জাহাজ দক্ষিণ ভারত মহাসাগরীয় এলকাতে রয়েছে। জাহাজটি ওই ধ্বংসাবশেষগুলো উদ্ধারে ইতোমধ্যে রওয়ানা করেছে বলে জানা গেছে। জাহাজটিতে যে ক্রেন রয়েছে তা যে কোনো ধরনের ধ্বংসাবশেষ উদ্ধারে সক্ষম বলেও জানা গেছে।

এদিকে কুয়ালালামপুরে মালয়েশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিশামুদ্দিন হুসেইন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আগামী কয়েক ঘন্টা অথবা মঙ্গলবার সকালের মধ্যেই ওই ধ্বংসাবশেষগুলো উদ্ধার করা সম্ভব হবে।’

টনি এ্যাবট জানান, যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর বিমান পোসাইডন, দ্বিতীয় আরেকটি অস্ট্রেলিয় অরিয়ন বিমান ও একটি জাপানি অরিয়ন বিমানও ওই এলাকাটির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

কিন্তু টনি এ্যাবট সতর্ক করে দিয়ে বলেন, বিমান থেকে দেখা সমুদ্রে ভাসমান বস্তুগুলো মালেয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানেরই ধ্বংসাবশেষ কি না তা আমরা এখনও নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। তবে আমরা আশাবাদী শিগগিরই আমরা বস্তুগুলো উদ্ধার করতে পারব। আর বস্তুগুলো হয়তো মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের মর্মান্তিক রহস্য উদঘাটনে আমাদেরকে আরেক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

এর আগে সোমবারই চীনা রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জিনহুয়া জানিয়েছে, দক্ষিণ ভারত মহাসাগরের ‍তল্লাশি অভিযান অঞ্চলে চীনের নিযুক্ত বিমানটি কিছু ‘সন্দেহজনক’ বস্তু দেখতে পেয়েছে। বস্তুগুলো সাদা ও বর্গাকৃতির বলেও জানান চীনা কর্তৃপক্ষ। জুয়েলং নামে এর এক আইসব্রেকার জাহাজকে চীন ওই এলাকায় ইতোমধ্যেই প্রেরণ করেছে বলেও জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, গত ৮ মার্চ মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর থেকে চীনের বেইজিংয়ের উদ্দেশে রওয়ানা করা এমএইচ-৩৭০ জেট বিমানটি ২৩৯ জন আরোহী নিয়ে হারিয়ে যায়। এরপর আন্দামান সাগর থেকে শুরু করে ভারত মহাসাগর পর্যন্ত তন্ন তন্ন করে খোঁজা হলেও এখনও বিমানটির কোনো হদিস মেলেনি। সূত্র : এনডিটিভি ও বিবিসি।

x