Skip to content

সত্যিকারের প্রেমিককে খুঁজে নিন

প্রেমের সম্পর্কের মধ্যে যেকোনো জুটি ভবিষ্যত গড়ার স্বপ্ন দেখেন। দুজনকে নিয়ে দুজনের মাঝে নানা স্বপ্নের সঙ্গে দুশ্চিন্তাও কাজ করে। নারীদের জন্যে তার মনের মতো ছেলেটি খুঁজে পাওয়ার পর তাকে নিয়ে জীবন কাটানোর ক্ষেত্রে বিয়ে করার আগে একটু ভেবে নেওয়া ভালো। আপনার সঙ্গীটি যে আসলেই আপনার জন্যে ঠিক আছেন তা ১৬টি লক্ষণ দেখে আপনি বুঝতে পারবেন। গবেষকরা পরীক্ষা করে এসব পরামর্শ আপনাদের দিয়েছেন।

১. প্রেমিকার জন্য দীর্ঘপথ পাড়ি দেন তিনি-
এটা আদর্শ প্রেমিকের বৈশিষ্ট্য। তিনি যদি সত্যিই আপনাকে ভালোবাসে থাকেন, তাহলে প্রেমিক আপনার জন্যে যেকোনো কাজে দীর্ঘপথ পাড়ি দেবেন। এটা ভবিষ্যতের জন্য সবচেয়ে আদর্শ একটি লক্ষণ।

২. তার কাছে অনিরাপদ বোধ করেন না-
আপনি যখন প্রেমিকার বাহুবন্দি হয়ে নিরাপত্তা নিয়ে মুখ গুঁজতে পারেন বা যেকোনো পরিস্থিতিতে প্রেমিককে নিয়ে কোনো নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়েন না, তবে বুঝতে হবে তিনি আপনার জন্য একেবারে সঠিক মানুষ।

৩. তাকে নিয়ে সুন্দর ভবিষ্যত দেখতে পান-
ব্রায়ান অ্যডামসের গানের কথার মতো বলতে হয়, আপনি যখন তার চোখে আপনার ভবিষ্যত সন্তানের ছবি দেখতে পান, তখন আপনি তাকে নিয়ে ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখেন। প্রেমিককে নিয়ে আপনি প্রিয় ছবিটিই দেখতে পান।

৪. বাজে সময় তিনি আপনার পাশেই ছিলেন-
নানা জনের ক্ষেত্রে নানা পরিস্থিতিতে এর সংজ্ঞা এবং ধারণা ভিন্ন হলেও বলা যায়, প্রেমিক আপনার জীবনের নানা অসময়ে একেবারে আপনার পাশেই ছিলেন। মনে রাখবেন, দুঃসময়ের কালে আপনার পাশে থাকতে উদগ্রীব থাকবেন প্রেমিক। কারণ তিনি তার কাছে এমনই একজন।

৫. অনেক কিছুতেই আপনাকে নিরুৎসাহিত করেন-
ভালো বলেই মনে হলেও অনেক কিছুই রয়েছে যা ক্ষতিকর কিছু বয়ে আনতে পারে। আর এসব বিষয়ে তিনি অবশ্যই আপনাকে নিরুৎসাহিত করবেন। আপনার যেকোনো চাওয়ায় প্রেমিকের হ্যাঁ-সূচক মাথা নাড়ানো মানেই কিন্তু তিনি আপনার জন্য আদর্শ ব্যক্তি।

৬. তাকে ছাড়া আপনি ভবিষ্যত দেখতে পান না-
আপনাকে বলা হচ্ছে না যে, এমন প্রমিকা হতে হবে যে প্রেমিক ছাড়া কিছুই ভাববেন না। কিন্তু তাকে নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করতে গেলে যদি আপনার মনে হয় যে ভালোবাসার মানুষটি এমনভাবে আপনার মনে গেঁথে গিয়েছে যে তাকে ছাড়া আপনার বেঁচে থাকাটা কষ্টকর বলে মনে হবে, তাহলে ধরে নেওয়া যায় তিনি আপনার জন্য সঠিক মানুষটি।

৭. আপনার বক্তব্য শোনেন-
যেকোনো সমস্যায় আপনি যা বলতে চান, তা পুরোটা শুনতে চান আপনার প্রেমিক। এতে তা ধৈর্যচ্যুতি ঘটে না।

৮. আপনার সবচেয়ে ভালো বন্ধু-
বন্ধুত্বের সাধারণ বৈশিষ্ট্যে ভিত্তিতে তার সঙ্গে আপনার সম্পর্ক সবচেয়ে ভালো। সাধারণ বন্ধু হিসেবেও তিনি আপনার সবচেয়ে কাছের বন্ধু বলেই মনে হয়।

৯. পরিবর্তন দুজনে আরো কাছে এনেছে-
দুজনের সম্পর্কের মাঝে কারো মধ্যে পরিবর্তন আসতেই পারে। ভালো বা খারাপ দুই দিক থেকেই তা ঘটতে পারে। আর এই পরিবর্তন দুজনকে আরো কাছে টেনে আনবে, দূরে সরাবে না।

১০. তিনি আপনাকে হাসতে শেখান-
তার বাচ্চার মতো আচরণ হোক বা অন্যকিছু, তার অনেক কারণেই আপনি হাসেন। তিনিও আপনাকে হাসাতে চান।

১১. ভালোবাসে খুনসুটিগুলো করে-
আপনাকে তিনি অনেক ভালোবাসেন দেখেই নানা ছোটখাট কাজ করে আপনার মন ভালো করে দেন। আপনাকে একটা সুন্দর ম্যাসেজ পাঠান বা ব্যাগে একটি চিরকুট ভরে দেন ভালোবাসি লিখে।

১২. আপনাকে শুধু ছুঁতে চান-
এখানে যৌনতার নাম-গন্ধ নেই। কোনো বাজে উদ্দেশ্যেও নয়, আপনাকে একটু ছুঁয়ে দেখতে চান আপনার প্রেমিক। এই স্পর্শ বা ছোঁয়া আপনার প্রতি তার ভালোবাসার নামান্তর।

১৩. সবকিছুর পর তাকেই ভালো লাগে-
নানা টানাপড়েনের পরও আপনার মন তাকেই চায়। তিনিই আপানার জন্যে আদর্শ পুরুষ বলে সাঁয় দেয় মন। অন্যদের কথা ভাবতেও পারেন না আপনি। কাজেই তিনিই আপনার মনের মতো মনের মানুষ।

(সূত্র : ইন্টারনেট, কালের কণ্ঠ’র অনলাইন সংস্করণ থেকে নেয়া)

x