Skip to content

সৌদি আরবে জমি ক্রয়ের অনুমতি পেয়েছে বাংলাদেশি স্কুল

সৌদি আরবে প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটি পরিচালিত স্কুলের জন্য জমি কেনার অনুমতি দিয়েছে দেশটির সরকার।

এই সুযোগ গ্রহণ করে রাজধানী রিয়াদে অবস্থিত বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের জন্য জমি কেনার মাধ্যমে স্কুলের ভাড়া বাবদ প্রতি বছর ব্যয়িত বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় সম্ভব বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। একই সুযোগ প্রযোজ্য অন্যান্য স্কুলের ক্ষেত্রেও।

সৌদি আরবে দেশটির নাগরিকরা ছাড়া আর কারও জমি কেনা আইনত নিষিদ্ধ। তবে সম্প্রতি দেশটিতে বসবাসকারী বিভিন্ন প্রবাসী কমিউনিটি কর্তৃক পরিচালিত স্কুলগুলোকে জমি কেনার সুযোগ দিয়েছে সৌদি সরকার।

সৌদি আরবে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশির বসবাস। গত ত্রিশ বছর থেকে সৌদি আরবে বাংলাদেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয়ে আসছে, যার মধ্যে রিয়াদস্থ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অন্যতম।

স্কুলটির বাংলা এবং ইংলিশ শাখার ভবন ভাড়া বাবদ স্কুল কর্তৃপক্ষকে বছরে দিতে হয় ১৫ লক্ষ রিয়াল (৩ কোটি ৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা)।

সৌদি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শর্ত মোতাবেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করতে সর্বোচ্চ তিনতলা ভবন, প্রতি শিক্ষার্থীর জন্য শ্রেণী কক্ষে ১.৫ বর্গ মিটার, অফিসের কক্ষের জন্য ১ হাজার বর্গ মিটার জায়গা এবং শিশু ও বালকদের জন্য আলাদা খেলার মাঠের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

সে হিসাবে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের জন্য ৯ থেকে ১০ হাজার বর্গ মিটার জমির প্রয়োজন।বর্তমান বাজারে এর খরিদ মূল্য ৮ থেকে ৯ মিলিয়ন (৮০-৯০লাখ)রিয়াল।

জমি কেনার পর ভবন নির্মাণে আরো প্রায় ৮-৯মিলিয়ন (৮০-৯০লাখ) রিয়ালের প্রয়োজন হবে যা স্কুল কর্তৃপক্ষ যোগান দিতে না পারলেও স্থানীয় ব্যাংক বা ডেভেলপার কোম্পানির থেকে সহজ শর্তে ঋণ নেয়া সম্ভব।

তাই বছর বছর বিপুল পরিমাণ অর্থ ভাড়া না গুণে জমি খরিদের মাধ্যমে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের বিপুল পরিমাণ অর্থ সাশ্রয় সম্ভব।

ইতোমধ্যেই রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে এই সুযোগ গ্রহণের জন্য প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের সবুজ সংকেত পাওয়া মাত্রই রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত রয়েছে বলেও জানিয়েছে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দূতাবাসের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল বাংলা শাখার চেয়ারম্যান ডাক্তার জাকিউল হাসান বলেন,ভবিষ্যত প্রজন্মের প্রবাসী সন্তানদের কাছে নিজেদের দায়িত্বশীলভাবে উপস্থাপনের এটাই সুযোগ।

বাংলাদেশ সরকারের কাছে এ ব্যাপারে অর্থনৈতিক সহযোগিতা কামনা করেন ডাক্তার জাকিউল হাসান।

রিয়াদস্থ বাংলাদেশ কমিউনিটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বলেন, রিয়াদে জমির দাম যেভাবে বাড়ছে তাতে এখনই এই জমি কিনতে পারলে অদূর ভবিষ্যতে এটি দেশের সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হবে। এ ব্যাপারে তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

ইতোমধ্যেই সৌদি সরকারের ঘোষণার পর রিয়াদস্থ পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল কর্তৃপক্ষ ভবনসহ একটি জমি ক্রয় করেছে বলেও জানা গেছে।

২০১৩ সালে রিয়াদে সফরকালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল কলেজ রিয়াদের বাংলা ও ইংলিশ শাখা এবং বুরাইদা বাংলা স্কুলকে একটি করে গাড়ি দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। প্রতিশ্রুত গাড়ির সেই অর্থ প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে এসে পৌঁছেছে। খুব শীঘ্রই বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম স্কুলগুলোকে গাড়ি হস্তান্তর করবেন বলে দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে।

x