Skip to content

ছাতকে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের দু’সদস্য গ্রেফতার -অস্ত্র উদ্ধার

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মুক্তারপুর থেকে বিভিন্ন ডাকাতির ঘটনায় লুণ্ঠিত মালামাল ও ডাকাতদের ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্রসহ আন্তঃজেলা ডাকাতদলের দু’সদস্য লিয়াকত আলী (৩৮) ও কালারাজা (৩৫) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ডাকাত আকত মিয়া ওরফে লিয়াকত আলী হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার যাত্রাপাশা ইউনিয়নের প্রথমাদেক গ্রামের মৃত কুতুব উল্লাহর ছেলে ও কালারাজা ছাতক উপজেলার মুক্তারপুর গ্রামের মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে।

বুধবার গভীর রাতেগোপন সংবাদের ভিত্তিতে ছাতক থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রথমে লিয়াকত আলীকে মুক্তারপুর গ্রামে তার শশুর বাড়ি থেকে গ্রফতার করে। পরে লিয়াকত আলীর স্বীকারোক্তিতে কালারাজাকে তার নিজ বাড়ি থেকে অস্ত্র ও লণ্ঠিত মালামালসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়।

লিয়াকত আলী মুক্তারপুর গ্রামের কালা মিয়ার জামাতা।

এ সময় অন্তত ১০টি ডাকাতির ঘটনায় লুণ্ঠিত মালামাল ও ডাকাতদের অস্ত্রা উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় সাংবাদিকদের সামনে অস্ত্র ও লুণ্ঠিত মালামালসহ দু’ডাকাতকে হাজির করা হয়।

উদ্ধার করা মালামালের মধ্যে দুটি লাকেজ, বিভিন্ন ব্রান্ডের ১৬টি শাড়ী, ১টি কামিজ, ১টি শেলোয়ার, ১টি থ্রি-পিছ, ১টি লেপটপ, ৫টি মোবাইল সেট, ৮টি ঘড়ি, দু’জোড়া স্বর্ণের দুল, ১জোড়া স্বর্ণের রিং, ১টি স্বর্ণের আংটি, ৫টি স্বর্ণের নাক ফুল, ১টি ডিজিটাল ক্যামেরা, বিভিন্ন কোম্পানীর ১১টি সিম, ৬১ সৌদি রিয়াল, জর্দানের দিনার ১টি, ১টি ইস্ত্রি এবং ডাকাতদের ব্যবহৃত অস্ত্রের মধ্যে ১২টি রামদা, ১টি সাবল, ৩টি চিরা পাঞ্জা, ১টি লোহার রড ও ১২টি বিভিন্ন সাইজের টর্চ লাইট রয়েছে। এ ব্যাপারে ছাতক থানার অফিসার্স ইনচার্জ শাহজালাল মুুন্সি জানান, ডাকাত সর্দার রাজুর সহযোগী লিয়াকতকে গ্রেফতার করে তার বাসা থেকে লুন্ঠিত মালামাল ও অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

ছাতক থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজালাল মুন্সি বিষয়টি নিশ্চিত করে সুনামগঞ্জ মিররকে জানান, লিয়াকত একাধিক ডাকাতি মামলার পলাতক আসামী । সে ছাতক, বিশ্বনাথ, ওসমানীনগর, হবিগঞ্জ, নবীগঞ্জ, বানিয়াচং, আজমিরিগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে আসছিল।

x