Skip to content

সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় এক ব্যক্তির যাবজ্জীবন

সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় ইসলাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ ও ৩০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার বেলা পৌনে ১২টায় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আবদুল হান্নান এ রায় দেন।

ইসলাম উদ্দিনর সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার শিমুলতলা গ্রামের মৃত মছরব আলীর ছেলে।

এামলার বিবরণে জানা যায়, ১৯৯৮ সালের ১৪ ফেব্র“য়ারি সন্ধ্যায় উপজেলার শিমুলতলা গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের গ্রাম্য বিষয় নিয়ে ইসলাম উদ্দিন ও একই গ্রামের মকসদ আলীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে পর দিন ১৫ ফেব্র“য়ারি সকাল ৭ টায় মকসত আলীকে ডাকাডাকি শুরু করে উনসলাম উদ্দিন ও তার লোক জন। এসময় মকসদ আলী মাঠে গেলে ইসলাম উদ্দিন মকসদ আলীকে পিটিয়ে আহত করে। সঙ্গে সঙ্গে মকসদ আলীকে স্বজনরা ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ওই দিন বিকেলে মকসদ আলীর ভাই আব্দুল হান্নান বাদি হয়ে ছাতক থানায় ইসলাম উদ্দিন ও তার ভাই নূর ইসলাম এবং একই গ্রামের জমসর আলী ছেলে সুনুর, মৃত আশ্রব আলীর ছেলে আমির, মৃত সাদক আলী ছেলে কুদ্দুছ, কাদিও,মৃত আমজাদ আলীর ছেলে লুৎফুর,আসক আলীর ছেলে জমসেদ এর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে পুলিশ আদালতে চার্জশীট দাখিল করে।

স্বাী প্রমাণ শেষে আদালত আসামি ইসলাম উদ্দিনকে দন্ড বিধির ৩০২ ধারায়-যাবতজীবন সশ্রম কারাদন্ড এবং ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অনাদায়ে আরো এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন।

স্ব্যা প্রমানে প্রমানিত না হওয়ায় আদালত নূর ইসলাম, সুনুর, আমির, কুদ্দুছ, কাদির, লুৎফুর, জমসেদ বেখসুর খালাস প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট নান্টু রায় এবং আসামি পে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট মো.জহুর আলী ও অ্যাডভোকেট আব্দুর রউফ চৌধুরী।

x