Skip to content

র‌্যাবের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে হাইকোর্টের নির্দেশ

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৭ জনকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় র‌্যাব-১১ এর সদস্যদের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগসহ সার্বিক বিষয়ে তদন্ত করতে সরকারকে এবং বিভাগীয় তদন্ত করতে র‌্যাবকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার স্বপ্রনোদিত হয়ে এ আদেশ দেন।

নারায়ণগঞ্জের সাতজনকে হত্যার ঘটনায় ৬ কোটি টাকার লেনদেনের বিষয়ে সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদ আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. শামীম সরদার। এরপর আদালত আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এএসএম নাজমুল হক।

তিনি জানান, নারায়ণগঞ্জের ওই ঘটনায় সার্বিক বিষয়ে (অপহরণ,হত্যাকাণ্ড ও লেনদেন) তদন্ত করতে হাইকোর্ট সরকারকে ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে এ কমিটিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ২ জন, আইন মন্ত্রণালয়ের ২ জন ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২ জনকে (উপ-সচিব) সদস্য রাখতে বলা হয়েছে। এছাড়া সিআইডিকে আলাদা তদন্ত ও র‌্যাবকে বিভাগীয় তদন্ত করার আদেশ দিয়েছেন আদালত। তাদেরকে সাত দিনের মধ্যে তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করতে হবে।

নাজমুল হক জানান, সরকারি প্রতিষ্ঠানের (র‌্যাব, পুলিশ) কোনো কর্মকর্তা জড়িত কিনা সে বিষয়ে এ কমিটি তদন্ত করবেন। এছাড়া ডিবির পাশাপাশি সিআইডিও তদন্ত করবে।

তিনি আরো জানান, র‌্যাবের বর্তমান বা সাবেক কোনো সদস্যের এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততা আছে কিনা- সে বিষয়ে বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে র‌্যাবকে। আর র‌্যাব হত্যা মামলার তদন্ত করতে পারবে না।

এদিকে পুলিশ মহাপরিদর্শককে এ ঘটনার সাক্ষীদের নিরাপত্তা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শামীম সরদার জানান, ৬ কোটি টাকা লেনদেনের বিষয়ে র‌্যাবের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের সেভেন মার্ডারের ঘটনায় র‌্যাব জড়িত বলে ভিকটিম প্যানেল মেয়র নজরুলের পরিবারের পক্ষে অভিযোগ তোলা হয়েছে।

রোববার নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম রাইফেল ক্লাবে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, র‌্যাব নজরুল ইসলামকে তুলে নিয়ে হত্যা করেছে। এর জন্য আরেক কাউন্সিলর নূর হোসেনসহ কয়েকজনের কাছ থেকে ৬ কোটি টাকা নিয়েছেন র‌্যাবের কয়েকজন কর্মকর্তা।

সোমবার পত্র-পত্রিকায় এ অভিযোগ সম্বলিত সংবাদ প্রকাশিত হয়। এসব সংবাদের কাটিং সংযুক্ত করে শামিম সরদার নামের সুপ্রিম কোর্টের একজন আইনজীবী সোমবার হাইকোর্টে আবেদন জানালে হাইকোর্ট অভিযোগ তদন্তের আদেশ দেন।

এদিকে এ অভিযোগ তদন্তে সোমবারই র‌্যাবের উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে। র‌্যাব সদর দফতর ৪ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি গঠন করে। কমিটিতে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক(প্রশাসন) আফতাব উদ্দীনকে প্রধান করা হয়েছে।

কমিটি স্বল্প সময়ের মধ্যে অভিযুক্তদের বিষয়ে প্রতিবেদন দেবে এবং এ ব্যাপারে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটির লিগ্যাল মিডিয়া উইং।

x