কোন ক্লাসের শিক্ষার্থী কতদিন স্কুলে যাবে

প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শ্রেণিকক্ষে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে পাঠদান শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তবে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার স্বার্থে শুরুর দিকে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের প্রতিদিন স্কুলে আসতে হবে। এছাড়া পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন ক্লাসে আসবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে আন্ত:মন্ত্রণালয় বৈঠক শেষে তিনি এ কথা জানান। শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে বিকেল ৩টায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে এ সভা শুরু হয়।

ডা. দীপু মনি বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য। আপনারা সকলেই অবগত আছেন আমাদের দেশে অনেক শিক্ষার্থী একই ক্লাসের মধ্যে থাকে সে কারণে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে একদম প্রথম যখন শুরু হবে তখন আমাদের যারা এ বছর এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষা দেবেন তারা প্রতিদিন আসবেন প্রথমে। এছাড়া পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন ক্লাসে আসবে।

তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কেউ মাস্ক পরিধান ছাড়া ঢুকতে পারবে না। শিক্ষার্থী, শিক্ষক থেকে শুরু করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যারাই জড়িত সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। একেবারে কমবয়সী যারা, তাদের কোনো সংকট হচ্ছে কি না তা শিক্ষকদের খেয়াল রাখতে হবে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকে ৫ম শ্রেণি প্রতিদিন ক্লাস করবে। ১ম, ২য়, ৩য় ও চতুর্থ শ্রেণির ক্লাস এবং মাধ্যমিকে ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৯ম শ্রেণির ক্লাস হবে সপ্তাহে এক দিন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শুরুতে চার ঘণ্টা করে ক্লাস হবে। পর্যায়ক্রমে সব শ্রেণির ক্লাসের সময় বাড়ানো হবে।

তিনি বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে এই সিদ্ধান্ত। আমরা একই ক্লাসের শিক্ষার্থীদের দুইটি হয়তোবা কোথাও তিনটি ক্লাসে বিভক্ত করে শ্রেণিকক্ষে বসাতে হবে। আমরা মাঠ থেকে যে তথ্য পাচ্ছি তাতে এবার যারা এসএসসি এবং এইচএসসি দেবেন তাদের সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দিয়ে এবং অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে নানানভাবে তারা অনেকখানি পড়ানো হয়ে গেছে। তাদের হয়তো এখন কয়েক সপ্তাহ ক্লাস করানোর পরে আর তাদের নাও ক্লাস করানো লাগতে পারে। সেই ক্ষেত্রে যখন থেকে তাদের ক্লাস করানো লাগবে না তখন থেকে দশম এবং নবম শ্রেণি এবং দ্বাদশ এবং একাদশ তারা প্রত্যেক দিন আসবে। বাকি যারা একদিন করে আসবে শুরুতে। আমরা প্রতিদিন পর্যবেক্ষণ করব।

তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, জাতীয় পরামর্শক কমিটি যৌথভাবে পর্যবেক্ষণের মধ্যে রাখবো, আমরা দেখব পর্যবেক্ষণ করব কিভাবে এই পরিস্থিতিতে এগিয়ে যাচ্ছে, যদি দেখি কোন সমস্যা হচ্ছে না, সবকিছু ঠিকমত চলছে তাহলে আমরা আমাদের অন্যান্য ক্লাস যারা একদিন করে আসছে পর্যায়ক্রমে ক্লাসে আসার দিনের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে।

সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x