দীর্ঘ বিরতির পর মাদ্রিদের বার্নাব্যুতে প্রত্যাবর্তন

রিয়াল মাদ্রিদ আজ রাত একটায় দীর্ঘদিন বিরতির পর নিজেদের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে মাঠে নামবে। বার্নাব্যুতে প্রত্যাবর্তন, মহামারি পরবর্তীতে ঘরের মাঠে ৩০,০০০ দর্শক সাথে একটানা তিন এওয়ে ম্যাচ খেলার পর সিজনের প্রথম হোম গেম; এর যেকোন একটা বিশেষণে বিশেষায়িত করলেই এটি মাদ্রিদের আর দশটা ম্যাচের চাইতে যে বিশেষ সেটা বলার অপেক্ষা রাখেনা। কোচ কার্লো আনচেলত্তি ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বলেই দিয়েছেন এইরকম বিশেষ একটা দিন উৎযাপনের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে জয় ও নিজেদের পকেটে তিন পয়েন্ট পোরা।

রিয়াল মাদ্রিদ আন্তর্জাতিক বিরতির আগে নিজেদের প্রথম তিন ম্যাচে প্রাপ্য ৯ পয়েন্টের মধ্যে ৭ পয়েন্ট অর্জন করে নিজেদের লীগ টেবিলের শীর্ষে রাখতে সক্ষম হয়েছিলো। অপর দিকে তাদের প্রতিপক্ষ সেল্টা নিজেদের তিন ম্যাচের মাত্র একটিতে ড্র করতে সক্ষম হয় ও তারা বর্তমানে পয়েন্ট টেবিলের ১৮তম অবস্থানে আছে।। সেল্টা শিবিরে কোন ইনজুরি সমস্যা না থাকলেও মাদ্রিদ কোচ আনচেলত্তির রক্ষণভাগ, মধ্যভাগ ও আক্রমণ ভাগের ডান পার্শ্বে কাকে খেলাবেন এটা ঠিক করতে বেগ পেতে হবে। দলের মূল অধিনায়ক মার্সেলো, লেফট ব্যাক মেন্ডি, মিডফিল্ডার মদ্রিচ ইনজুরি থেকে ফিরলেও মাঠের বাইরে থাকতে হবে ক্রুস, আলাবা, বেল, জোভিচ ও ক্যাবলাস এর মত খেলোয়াড়দের। কিছু মিডিয়ার ভাষ্যমতে অভিষেক হতে পারে দলের সাথে নতুন যোগ দেয়া তরুণ ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার এডওয়ার্ডো কামাভিঙ্গার।

এখন পর্যন্ত এই দুইদল ২৩বার একে অপরের বিপক্ষে মাঠে নামে। রিয়াল মাদ্রিদ ১৭ জয়ের পাশাপাশি ৩ হার ও সমানসংখ্যক ড্র নিয়ে পরিষ্কার ভাবে এই পরিসংখ্যানে এগিয়ে আছে।

রিয়ালের প্রতিপক্ষ সেল্টা মূলত লো ব্লকে খেলতে পছন্দ করে। নিজেদের পায়ে বল বেশিক্ষণ রাখতে সক্ষম না হওয়ায় তাদের এটাকের মূল অস্ত্র কাউন্টার এটাক। এই ম্যাচে মাদ্রিদ ডিফেন্ডাররা ও বিশেষ করে ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার ক্যাসেমিরো কি পরিমাণ সেল্টা স্ট্রাইকার ইয়াগো আসপাস এর দিকে খেয়াল রাখতে পারছেন এটা খেলার কী পয়েন্ট হতে পারে। আসপাস একটু স্পেস খালি পেলেই দুর্দান্ত ফিনিশিংয়ের পাশাপাশি স্ট্রাইকার হয়েও প্লেমেকিংয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন যা গত সিজনে উনার এসিস্টের সংখ্যা দেখলে অনুধাবন করা যাবে।।

যেহেতু সেল্টা লো ব্লকে খেলতে পছন্দ করে তাই তাদের ডিফেন্স চূর্ণ বিচূর্ণ করে গোল পেতে মাদ্রিদের আক্রমণ ভাগের কিছু সময় লাগতে পারে। একটা জিনিস সবার মনে রাখতে হবে সেল্টার সিজন ভালোভাবে শুরু না হলেও প্রথম তিন ম্যাচে তারা মাত্র তিন গোল কনসিড করেছে অপরদিকে মাদ্রিদ ইতিমধ্যে ৪ গোল কনসিড করেছে।। অপরদিকে সেল্টা রক্ষণ ভাগের বহুদিনের দুর্বলতা হলো হাই টেম্পো ফুটবল সাথে লং রেঞ্জ শট ও কাউন্টার এটাকের বিপক্ষে তাই মাদ্রিদের উচিত হবে কার্লোর অধীনে নিজেদের সহজাত খেলা ধরে রেখে এটাকিং ফুটবল খেলা। সাথে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হবে ম্যাচের শুরুর দিকে লীড নেয়ার চেষ্টা করা কারণ এইরকম প্রতিপক্ষের বিপক্ষে প্রথম গোল পাওয়াটাই সবচেয়ে কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। একটা গোল পেয়ে গেলে পরবর্তীতে নিজেদের ডিফেন্স সামলে নির্ভারে এটাকে যাওয়া যায়। আর মাদ্রিদের প্রথমে লিড পেলে সেটা ধরে রাখার সক্ষমতা কতটুক আছে সেটা আর বলা লাগেনা।

অনিক চৌধুরী তপু/সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x