শান্তিগঞ্জে পাগলা ইউপি ছাত্রলীগের সম্মেলনের জোর প্রস্তুতি চলছে

সুনামগঞ্জ জেলার শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন শাখার ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর)। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব মো. হাসনাত হোসেন। সম্মেলনকে সফল করতে ইতোমধ্যে একটি প্রস্তুতি সভাও করেছেন ইউনিয়নের ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।

প্রস্তুতি সভার পরদিন থেকেই নতুন করে সাজতে শুরু করেছে ইউনিয়নের বিভিন্ন জায়গা। বিশেষ করে পাগলা বাজারের বাসস্ট্যান্ড ও সম্মেলনস্থল কলেজ মার্কেটের সামনের অংশটুকু চেয়ে গেছে ব্যানার ফেস্টুনে। একটু জায়গাও খালি নেই। নিজ নিজ পছন্দের প্রার্থীর ছবির সাথে তার ছবি দিয়ে টানানো হয়েছে ব্যানার-ফেস্টুন। প্রার্থী বা পছন্দের ব্যক্তি ভিন্ন হলেও সকলেই কিন্তু পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নানকে ঘিরেই রাজনীতি করছেন।

এদিকে, কেউ কেউ আবার এ সম্মেলনেই বিশাল বড় বড় ব্যানারে বার্তা দিয়ে দিচ্ছেন আগামী (তারিখ নির্ধারণ হয়নি) উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নিজের পছন্দের প্রার্থীর কথা। এরকমই একটি বড় ব্যানার চোখে পড়ে পাগলা বাজারের কলেজ মার্কেটের সামনে। উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মো. সাফিউল ইসলাম সুসাদ মির্জার সৌজন্যে টানানো এ ব্যানারে বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের ছবি ছাড়াও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, তার একান্ত রাজনৈতিক সচিব মো. হাসনাত হোসেন, পশ্চিম পাগলা ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল হক, আওয়ামী লীগ নেতা দেলোয়ার হোসেনের ছবি সম্বলিত একটি বিশাল ব্যানার টানানো।

সেখানে তিনি মো. হাসনাত হোসেনকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দেখতে চান বলে প্রচার করেছেন। এসব ছাড়াও আরও অসংখ্য ছোটবড় ব্যানার ফেস্টুনে ২৪ সেপ্টেম্বরের সম্মেলনের সফলতা চেয়ে ও প্রার্থিতার জানান দিয়ে সাজ সাজ রবে সেজে উঠেছে উপজেলার রাজনীতির মিলনস্থল পাগলা বাজার।

সূত্র জানায়, ২৪ তারিখের সম্মেলনকে সামনে রেখে বাহির থেকে যেমন সেজেছে ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন এলাকা তেমনি ভেতরে ভেতরেও বিভিন্ন প্রস্তুতি রয়েছে ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের মধ্যে। স্থানীয় ছাত্র রাজনীতির এসব নেতারা পদ পেতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে লবিংও চালিয়ে যাচ্ছেন তার পছন্দের পদে আসতে। রাত দিন নেই যে কোনো সময় তাদের সমর্থিত কর্মীদের নিয়ে আলোচনায় বসছেন। ঠিক করছেন ২৪ তারিখের কর্মপরিকল্পনা।

সভাপতি-সম্পাদক পদে আসতে চান যারা
পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের রাজনীতি শান্তিগঞ্জ উপজেলার রাজনীতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই এ সম্মেলনের মাধ্যমে ইউনিয়নের নেতৃত্বে যে কেউই আসতে চাইবেন। ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে আসতে সভাপতি হিসেবে আসতে চাইছেন ৪ জন। মুবিন সিদ্দিক, রুহুল আমীন, সোহান আহমদ ও মনিরুজ্জামান শিপু। সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন ৫ জন। তারা হলেন কামাল আহমদ, রাজ নূর আল হাসান, সাদিকুল ইসলাম টাপু, মাজহারুল ইসলাম মাজহার ও অনি শাহ। তারা প্রত্যেকেই ব্যানার ফেস্টুন দিয়ে তাদের প্রার্থিতার জানান দিচ্ছেন। কাদের নেতৃত্বে আসছে পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ তা দেখার জন্য অপেক্ষা করতে হবে শুক্রবার পর্যন্ত। উপজেলা ছাত্রলীগের এক সাবেক ও এক বর্তমান নেতার আলাদা আলাদা প্রার্থী দেওয়ার বিষয়টিও ‘ওপেন সিক্রেট’ রয়েছে। আলোচনায় খোরাক যোগাচ্ছে এ ‘অপেন সিক্রেট’ বিষয়টিও।

সম্মেলন বিষয়ে কথা শান্তিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন তালুকদারের সাথে। তিনি বলেন, পশ্চিম পাগলা আমার ইউনিয়ন। এ সম্মেলন হবে পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের ইতিহাসের অন্যতম একটি সম্মেলন। এখানে মন্ত্রী মহোদয় উপস্থিত থাকবেন। সুন্দর একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আমাদের ইউনিয়নে। এখান থেকেই একটি কার্যকর কমিটি বের হয়ে আসবে। ২৪ তারিখের সম্মেলন সফল হোক।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক মনসুর আলম সুজন বলেন, আমরা সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা চাই। কোনো বিদ্বেষ চাই না। আমাদের এখান থেকে অবশ্যই সক্রিয়, ত্যাগী নেতা বের করে নিয়ে আসবো। একটি কার্যকর কমিটি আশা করছি।

পরিকলল্পনামন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব মো. হাসনাত হোসেন বলেন, পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন শান্তিগঞ্জ উপজেলার একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ইউনিয়ন। তাই, এ ইউনিয়নের সম্মেলনে মন্ত্রী আগ্রহ নিয়ে উপস্থিত থাকছেন। একটি কার্যকর কমিটি আসবে বলে আমাদের ধারণা। সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীরা অনেকটা উজ্জীবিত।

ইয়াকুব শাহরিয়ার/সুনামগঞ্জমিরর/টিএম

x