Skip to content

স্বস্তির বৃষ্টিতে আমন চাষির মুখে হাসি

ভাদ্রের শুরুতেই ছিলো বৃষ্টি কমে যাওয়ার আভাস। এসময় শঙ্কায় ছিলেন কৃষক। তবে আমন ধানের চারা রোপণের সময় কিছুটা বেগ পোহাতে হলেও যথাযথভাবেই সম্পন্ন হয় চারা রোপণ।

হলদেটে ধানের চারা রোপণের পর আশ্বিনের প্রথম সপ্তাহ থেকে তা কাঁচাসবুজ রঙ ধরতে শুরু করে। তবে এর মাঝে বিপত্তি বাঁধায় বৃষ্টিহীনতা।

আশ্বিন মাসের প্রথমসপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া প্রচণ্ড রোদ ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায় আমন ধানের জন্য। চিন্তার রেখা এঁকে দেয় কৃষকদের কপালে। তখন একফোঁটা বৃষ্টির জন্য প্রতিদিন আকাশের দিকে চেয়ে স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করেছেন তারা।

অবশেষে গতকাল ও আজ সকালের বৃষ্টিতে চিন্তা কেটে গেলো কৃষকের। বলছিলাম শান্তিগঞ্জ উপজেলার আমন চাষীদের কথা।

গত শনিবার থেকে দিনের একবেলা যেকোনো সময় নিয়মিত বৃষ্টি হচ্ছে শান্তিগঞ্জ উপজেলায়। এতে উপজেলার সব জায়গায় রোপণ হওয়া ধানের চারা সতেজ হতে শুরু করেছে। হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে।

কৃষকরা জানান, আমন জমি নিয়ে তারা খুব দুশ্চিন্তায় ছিলেন। শুরু থেকেই প্রচণ্ড রোদের তাপে জমির পানি শুকিয়ে গিয়েছিলো। সময়মতো বৃষ্টি হয়েছে। তা না হলে অঙ্কুরেই বিনষ্ট হয়ে যেতো ‘সোনার আগন মাইয়া’ ধান।

কথা হয় উপজেলার পশ্চিম পাগলা, দরগাপাশা ও পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নের কৃষক রশিদ আলী, চাঁন মিয়া ও আবদুস সাত্তারের সাথে। তারা মুখে একচিলতে হাসি নিয়ে বলেন, আমরা গরীব মানুষ। আল্লাহর উপর ভরসা কইরা জমিনো রোয়া দেই। যেমেলা রইদ আরম্ভ অইছিল, ধান সবতা জ্বলি গেলোনে। আল্লার মায়া। মেঘ অইছে। অখন ধানের চেহারা কিছু ফিরত আইছে। আমরা খুশি। শুকরিয়া।


ইয়াকুব শাহরিয়ার/সুনামগঞ্জমিরর/টিএম

x