Skip to content

নববর্ষের বর্ণিল উৎসবে মাতলো দেশ

নববর্ষের বর্ণিল উৎসবে মাতল দেশ 

দুই বছর পর ফের পয়লা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মাতল দেশ। রাজধানীসহ সারা দেশেই ছিল বর্ষবরণের নানা আয়োজন। নব আনন্দে বরণ করা হলো বাংলা ১৪২৯ সনকে। অতীতের ভুল ত্রুটি ও ব্যর্থতার গ্লানি ভুলে নতুন করে সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় উদযাপিত হলো বছর শুরুর দিনটি।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে গেল দুই বছর পয়লা বৈশাখ উপলক্ষে তেমন কোনো আয়োজন ছিল না। তবে সংক্রমণ কমে আসায় এবার উৎসবের নানা আয়োজন করা হয়। ‘বাংলা নববর্ষ ১৪২৯’ জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে এবার জাতীয় পর্যায়ে ব্যাপক কর্মসূচি নেওয়া হয়। বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনও নানা কর্মসূচি নেয়। রমনা বটমূলে ছায়ানট আয়োজন করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ মঙ্গল শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করে।

করোনা মহামারির কারণে গত দুবছর রমনার বটমূলে ছায়ানটের ঐতিহ্যবাহী প্রভাতী সংগীতানুষ্ঠান হয়নি। মহামারির দুঃসময় অতিক্রম করে মানুষের জীবনে স্বাভাবিক কর্মপ্রবাহ ফিরে আসার নতুন বাস্তবতাকে তুলে ধরতে আনন্দের গান দিয়ে সাজানো হয় এবারের ছায়ানটের গানের অনুষ্ঠান। মূল ভাব ছিল ‘নব আনন্দে জাগো’।

dhakapost

সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে রামকেলি রাগ পরিবেশনার মধ্য দিয়ে রমনা বটমূলে ছায়ানটের অনুষ্ঠান শুরু হয়।

ছায়ানট সভাপতি সনজীদা খাতুন নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য দেন। নব্বই বছরে পা রাখা সনজীদা খাতুন শারীরিক দুর্বলতার কারণে অনুষ্ঠানে সরাসরি উপস্থিত হতে পারেননি। তিনি ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখেন। পরে তার গাওয়া ‘নব আনন্দে জাগো’ গানটি বাজিয়ে শোনানো হয়। নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ছায়ানটের নির্বাহী সভাপতি সারওয়ার আলী।

প্রায় আড়াই ঘণ্টার অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, দ্বিজেন্দ্রলাল রায়, অতুলপ্রসাদ সেন, রজনীকান্ত সেন এই পাঁচ কবির গানের সঙ্গে ছিল লালন সাঁই, গুরুসদয় দত্তের ব্রতচারীর গান, গিরীন চক্রবর্তীর পল্লীগীতি ও নুরুল ইসলাম জাদিদের ভাওয়াইয়া। সঙ্গে ছিল আবৃত্তি পাঠ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাঙালি যে বিশ্বের বুকে এক গর্বিত জাতি, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণে সেই স্বজাত্যবোধ ও বাঙালিয়ানা নতুন করে প্রাণ পায়, উজ্জীবিত হয়।

এদিকে, বাংলা নতুন বছর বরণ উপলক্ষে সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মঙ্গল শোভাযাত্রা হয়েছে। এবারের শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য ছিল ‘নির্মল করো, মঙ্গল করে মলিন মর্ম মুছায়ে’। সকাল নয়টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকার সড়কদ্বীপের সামনে থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু হয়। শোভাযাত্রা শুরুর আগে বেজে ওঠে ঢাক। মুখোশ, টেপাপুতুল, মাছ–পাখির প্রতিকৃতিসহ লোকসংস্কৃতির নানা উপাদান ছিল এবারের শোভাযাত্রায়।  বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন–সংলগ্ন ‘স্মৃতি চিরন্তন’ চত্বর ঘুরে আবার টিএসসিতে এসে শোভাযাত্রা শেষ হয়। পরে শোভাযাত্রায় প্রদর্শিত শিল্পবস্তু নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে যাওয়ার পর ঢাকের তালে উচ্ছ্বাসে মাতেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে দেশের সব জেলা ও উপজেলায় বৈশাখী র‌্যালি আয়োজনের খবর পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির দুইদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা আজ শুরু হয়েছে। বাংলা একাডেমি এবং বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে এবং বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন তাদের নিজেদের প্রাঙ্গণে নববর্ষ মেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে।

dhakapost

সব সরকারি-বেসরকারি টিভি, বাংলাদেশ বেতার, এফএম ও কমিউনিটি রেডিও বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করে এবং বাংলা নববর্ষের ওপর বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করেছে। বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি চ্যানেলসমূহ রমনা বটমূলে ছায়ানট আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার করে।

অতীতে বাংলা নববর্ষের মূল উৎসব ছিল হালখাতা। গ্রামে-গঞ্জে-নগরে ব্যবসায়ীরা নববর্ষের প্রারম্ভে তাদের পুরোনো হিসাব-নিকাশ সম্পন্ন করে হিসাবের নতুন খাতা খুলতেন। এ উপলক্ষে তারা নতুন-পুরাতন খদ্দেরদের আমন্ত্রণ জানিয়ে মিষ্টি বিতরণ করতেন এবং নতুনভাবে তাদের সঙ্গে ব্যবসায়িক যোগসূত্র স্থাপন করতেন।

মূলত ১৫৫৬ সালে কার্যকর হওয়া বাংলা সন প্রথমদিকে পরিচিত ছিল ‘ফসলি সন’ নামে, পরে তা পরিচিত হয় বঙ্গাব্দ নামে। গত শতাব্দীর ষাটের দশকের শেষে পয়লা বৈশাখ বিশেষ মাত্রা পায় রমনা বটমূলে ছায়ানটের আয়োজনের মাধ্যমে। এ সময় ঢাকায় ছায়ানটের উদ্যোগে সীমিত আকারে বর্ষবরণ শুরু হয়। স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে এই উৎসব নাগরিক জীবনে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বাঙালির অসাম্প্রদায়িক এবং গণতান্ত্রিক চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটতে থাকে।

কালক্রমে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান এখন শুধু আনন্দ-উল্লাসের উৎসব নয়, এটি বাঙালি সংস্কৃতির একটি শক্তিশালী ধারক-বাহক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে বের হয় প্রথম মঙ্গল শোভাযাত্রা, যা ২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর ইউনেস্কোর বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মর্যাদা পায়।

সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x