Skip to content

পেঁয়াজের দাম কমলো কেজিতে ১০ টাকা

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হওয়ার প্রভাব পড়েছে দেশি পেঁয়াজের দামে। দেশি পেঁয়াজ কেজিতে কমেছে ১০ টাকা। আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজি দরে। এদিকে দাম কমায় স্বস্তি ফিরেছে ক্রেতাদের মাঝে। আমদানি স্বাভাবিক থাকলে দাম আরো কমবে বলছেন ব্যবসায়ীরা।

প্রতি বছর কোরবানি ঈদের আগেই এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী পেঁয়াজের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। এতে অস্থির হয়ে উঠে পেঁয়াজের বাজার। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। পেঁয়াজের আমদানি বন্ধের অজুহাতে দফায় দফায় দাম বাড়িয়ে দেয় ব্যবসায়ীরা। ২০ টাকা কেজির পেঁয়াজ দাঁড়ায় ৪৫ থেকে ৫৫ টাকায়। এতে অস্থির হয়ে ওঠে বাজার।

এদিকে পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক রাখতে মঙ্গলবার (৫ জুলাই) শুরু হয় পেঁয়াজের আমদানি, যার প্রভাব পড়ে দেশিয় বাজারে। একদিনের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজ ১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩২ টাকায়। আর ভারত থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকায়।

বাজারে পেঁয়জ কিনতে আসা ক্রেতারা জানান, ভারতীয় পেঁয়াজ বাজারে আসায় দাম অনেকটাই কমেছে। এতে স্বস্তি ফিরেছে বাজারে।

হিলি স্থল বন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক মাহফুজার রহমান বাবু জানান, এ বন্দরে বছরে এক লাখ মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ আমদানি হলেও শুধু কোরবানির ঈদ উপলক্ষে ৪০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়ে থাকে। তবে সরকার এ বছর পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ রেখেছিল, কৃষকরা যেন লাভবান হয়। তবে পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে উঠলে আমদানির সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

হিলি কাস্টমসের তথ্য মতে মঙ্গলবার ও বুধবার দুই দিনে ভারতীয় ২৬ ট্রাকে ৬২২ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে এ বন্দর দিয়ে।

সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x