Skip to content

এই প্রথম ভিনগ্রহে পানির সন্ধান

প্রথমবারের মতো ভিনগ্রহে পানির সন্ধান পেয়েছে নাসার পাঠানো জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ। এক হাজার আলোকবর্ষেরও বেশি দূরে ডব্লিউএসপি-৯৬বি নামে একটি গ্রহে এ পানির সন্ধান পাওয়া গেছে। খবর ইন্ডিপেনডেন্টের।

মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা জানায়, কোটি কোটি ডলারের জেমস ওয়েব টেলিস্কোপটি ১ হাজার ১৫০ আলোকবর্ষ দূরে ডব্লিউএএসপি–৯৬বি নামের ওই গ্যাসীয় গ্রহটিতে পানির চিহ্ন পায়। টুইট বার্তায় নাসা জানায়, আমরা পৃথিবীসদৃশ ওই গ্রহে (এক্সাপ্লানেট) মেঘ থাকার প্রমাণও পেয়েছি।

নাসা, ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা ও কানাডিয়ান স্পেস এজেন্সির বানানো বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ও বৃহত্তম টেলিস্কোপ জেমস ওয়েব। এটি মহাবিশ্বের দূরবর্তী ছবি ধারণ করতে পারে। সম্প্রতি টেলিস্কোপটি মহাকাশের ১ হাজার ৩০০ কোটি বছর আগের অবস্থা ধারণ করে। জেমস ওয়েবের অতি উচ্চ-রেজোলিউশনের ছবিগুলো নাক্ষত্রিক জীবনচক্র ও ছায়াপথের অবস্থা সম্পর্কে ধারণা দেয়।

আশা করা হচ্ছে, শক্তিশালী এ স্পেস টেলিস্কোপটি ভিনগ্রহের জীবন সন্ধান করতে পারবে এবং ভবিষ্যতে মানুষের বসবাসের জন্য সম্ভাব্য বাসযোগ্য গ্রহ উন্মোচন করবে। নাসার একজন মুখপাত্র বলেছেন, পৃথিবীসদৃশ একটি গ্রহ (এক্সাপ্লানেট) অন্বেষণই তাদের মূল লক্ষ্য।

নাসা বলছে, জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ থেকে পাওয়া ছবিগুলো ‘জ্যোতির্বিদ্যায় একটি নতুন যুগের’ সূচনা করেছে। মহাকাশ সংস্থাটি বলছে, জেমস ওয়েবের পূর্ণ শক্তি দিয়ে মহাবিশ্বের রহস্য উন্মোচন করার মিশন শুরু করতে তারা প্রস্তুত।

গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর পাঠানো হয় মহাবিশ্বে পাঠানো হয় জেমস ওয়েব টেলিস্কোপ। টেলিস্কোপটি তৈরি ও মহাবিশ্বে পাঠাতে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার কোটি ডলার।

সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x