বিমে রড না দিয়েই নির্মাণ, ভাঙা হলো প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ৫ ঘর

ঘরের বিমের মাথায় চার টুকরা রড বাইরের দিকে ঠিকই বের করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভেতরে এর ছিটেফোঁটাও নেই। এমনটা ঘটেছে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে।

খবর পেয়ে শুক্রবার (১২ আগস্ট) রাতে ঘটনাস্থলে গিয়ে পাঁচটি ঘর ভেঙে দেয় উপজেলা প্রশাসন। এ সময় আরও ছয় ঘরের কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দোয়ারাবাজার উপজেলার মান্নারগাঁও ইউনিয়নের আজমপুর এলাকায় প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ৩৭টি ঘরের নির্মাণ কাজ এপ্রিল মাসে শুরু হয়। ঘরের কাজ পেয়েছিলেন উপজেলা সদরের রায়নগরের বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য তাজির উদ্দিন। কাজের শুরুতেই ঠিকাদার নিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল।

১৬ জুনের বন্যার আগে কিছু ঘরের কাজ হয়। বন্যার সময় কিছুদিন কাজ বন্ধ ছিল। এরপর আবার কাজ শুরু হয় রাতে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। শুক্রবার রাতেও ওখানে কাজ হচ্ছিল। স্থানীয় লোকজনের পক্ষ থেকে উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) জানানো হয়, ঘরের বিমে অভিনব কায়দায় বাইরে চার টুকরা রড ঢুকিয়ে ভেতরে কোনো রড দেওয়া হচ্ছে না। সিমেন্ট কম দেওয়া হচ্ছে। কাদা মাটির ওপর মসলা তৈরি করে ঢালাই করা হচ্ছে।

দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল খালেকের দাবি, ‘প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণে অনিয়ম হওয়ায় শুরুতেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মীরা প্রতিবাদ জানায়। উপজেলা প্রশাসনকে ঠিকাদার তাজির উদ্দিনের অনিয়মের কথা জানানো হয়। ওই সময় প্রতিবাদকারীদের উল্টো হেনস্তা করায় অনিয়ম বেশি হতে থাকে।’

গৃহ নির্মাণ কাজের ঠিকাদার তাজির উদ্দিন বলেন, ‘আমি মালামাল সরবরাহ করি। আমি ঠিকাদার নই। গৃহ নির্মাণের জন্য কমিটি আছে। এতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সভাপতি এবং প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সেক্রেটারি।’

তবে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফয়সল আহমদ এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারজানা প্রিয়াংকা অভিনব কায়দায় বড় অনিয়মের কথা জানিয়ে বললেন, ‘ঠিকাদারকে নিজ খরচে ভেঙে দেওয়া অংশে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

সুনামগঞ্জমিরর/এসএ

x