শ্রীলঙ্কায় বোরকা নিষিদ্ধ, বন্ধ করে দেওয়া হবে মাদ্রাসাও

শ্রীলঙ্কায় মুসলিম নারীদের বোরকা পরিধানে নিষেধাজ্ঞা জারি এবং এক হাজারের অধিক ইসলামিক স্কুল বন্ধ করে দেয়া হবে- গত শনিবার (১৩ মার্চ) এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন দেশটির জননিরাপত্তা মন্ত্রী শারাথ বীরসেকের।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাতে জানা যায়, শারাথ বীরসেকের বলেন, জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে মুসলিম নারীদের বোরকা পরিধানে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে মন্ত্রীসভায় অনুমোদনের জন্য তিনি একটি বিলে স্বাক্ষর করেছেন। শুক্রবার (১২ মার্চ) তিনি এ স্বাক্ষর করেন।

দেশ স্বাধীনের শুরুর দিকে শ্রীলঙ্কার মুসলিম নারীরা বোরকা পরিধান করতো না দাবি করে তিনি বলেন, “এটি (বোরকা) ধর্মীয় উগ্রবাদের চিহৃ। যা সাম্প্রতিক সময়ে বেড়েছে। তাই আমরা এটিকে নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছি।”

শ্রীলঙ্কায় সংখ্যালঘু মুসলিমদের বিরুদ্ধে নেয়া সর্বশেষ পদক্ষেপ হতে যাচ্ছে এটি। এর আগে ২০১৯ সালে গির্জা ও হোটেলে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনার প্রেক্ষিতে সাময়িক সময়ের জন্য দেশটিকে বোরকার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। সেই ঘটনায় ২৫০ এর অধিক মানুষ নিহত হয়েছিল।  ওই বছরের শেষ দিকে তৎকালীন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ও বর্তমান শ্রীলঙ্কান প্রেসিডেন্ট গোটবায়া রাজাপাকশে বলেছিলেন, জাতীয় শিক্ষানীতি নষ্ট করার দায়ে অন্তত এক হাজারের অধিক ইসলামিক স্কুল ও মাদ্রাসা বন্ধ করে দেয়া হবে। 

তিনি আরও বলেছিলেন, এখন থেকে কেউ আর শিশুদেরকে নিজেদের ইচ্ছেমতো পড়াতে পারবে না এবং তাদের স্কুল খোলারও অনুমতি দিবে না সরকার। পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা শ্রীলঙ্কা সরকারের এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছিল।

তথ্যসূত্র: রয়টার্স

সুনামগঞ্জ মিরর/এও

x