নিপীড়িতের অধিকার আদায়ে আমৃত্যু লড়েছেন বঙ্গবন্ধু

ছোটবেলা থেকে শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর। ন্যায়ের পক্ষে প্রতিবাদী এক নাম। যেখানে অন্যায় দেখেছেন সেখানেই সোচ্চার হয়েছেন ন্যায়ের পক্ষে। নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে নিপীড়িত, নিষ্পেষিত মানুষের অধিকার আদায়ে লড়েছেন আমৃত্যু। এজন্য জীবনের বেশি সময় কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে কাটিয়েছেন। তাঁর এই আত্মত্যাগের বিনিময়ে আজ আমরা স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার। এ দেশের মানুষের জন্য একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের স্বপ্ন দেখেছিলেন তিনি। স্বাধীন একটি দেশ উপহার দেওয়ার মাধ্যমে এ দেশের জনগণকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করেছেন বঙ্গবন্ধু।

বুধবার (১৭ মার্চ) সকাল ১০টায় সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য জাদুঘর প্রাঙ্গণে ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন শিশুর হৃদয় হোক রঙিন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান (বিপিএম), সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামসুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আলী আমজাদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট কমান্ডের সাবেক কমান্ডার নূরুল মোমেন প্রমুখ।

এর পূর্বে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০১তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সুনামগঞ্জ ঐতিহ্য জাদুঘর প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন।

এছাড়াও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা প্রশাসন, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ, জেলা পুলিশ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, সুনামগঞ্জ পৌরসভা, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ, সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রি, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ, জেলা যুবলীগ, সুনামগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগ, জেলা ক্রীড়া সংস্থা, জেলা ছাত্রলীগ, আলহাজ্ব মতিউর রহমান কলেজ, সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি এস.সি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, বিয়াম ল্যারেটরী স্কুল, সুনামগঞ্জ সড়ক বিভাগ, বারটান আঞ্চলিক কার্যালয়, জেলা সমবায় কার্যালয়, সুনামগঞ্জ প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র, কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) সুনামগঞ্জ, সুনামগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগ, জেলা আনসার, জেলা কৃষক লীগ, মহিলা কল্যাণ কেন্দ্র, সুনামগঞ্জ অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুল, সুনামগঞ্জ বন বিভাগ, বাংলাদেশ শিশু একাডেমি সুনামগঞ্জ, সুনামগঞ্জ জাতীয় মহিলা সংস্থা, সুনামগঞ্জ উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সামাজিক ও সংস্কৃতিক সংগঠন।

এর আগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে একত্রিশ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের সূচনা করা হয়। সকল সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্ত্বশাসিত এবং বেসরকারি ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এছাড়াও মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, প্যাগোড়া সহ অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা, জেলা সদর হাসপাতাল, শিশু পরিবার ও জেলা কারাগারে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে থিয়েটার সুনামগঞ্জের পরিবেশনায় মঞ্চস্থ হয় নাটক ‘পুনরুত্থান’।

সুনামগঞ্জের খবর

x