সংখ্যা বলছে চীনই সবচেয়ে বড় পরিবেশ দূষণকারী দেশ

মার্কিন দূত জন কেরি এই সপ্তাহে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আলোচনার জন্য চীন সফর করবেন। বাইডেন প্রশাসনের অধীনে চীনে এটিই তার প্রথম সরকারি সফর।ওয়াশিংটন আশা করছে, কূটনৈতিক বিতর্ককে দূরে সরিয়ে রেখে দুই পক্ষই পরিবেশ বিষয়ক চ্যালেঞ্জের দিকে মনোনিবেশ করবে।

আলাস্কায় বাইডেন প্রশাসনের দুই শীর্ষ কর্মকর্তার সঙ্গে চীনা কর্মকর্তাদের একটি বৈঠকের পরপরই কেরির এই সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে।  

তবে প্রাক্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে ‘একা দাঁড়ানো’ প্রয়োজন। চীন সফরে সম্ভাব্য সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলিতে মনোনিবেশ করা হবে।  

বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রে চীন কতটা দায়ী?

চীনের ৬০ শতাংশ বিদ্যুৎ এখনও কয়লা পুড়িয়ে উৎপাদন করা হয়। ১৯৯০ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে বার্ষিক কয়লা ব্যবহার প্রায় চার গুণ বেড়েছে।  

প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং অঙ্গীকার করেছেন, ২০৩০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণে শীর্ষে পৌঁছাবে। তবে ২০৬০ সালের মধ্যে চীন কার্বন মুক্ত হয়ে উঠবে।  

২০১৯ সালে চীনের গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন ছিল আনুমানিক ১৩.৯২ বিলিয়ন টন, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে দ্বিগুণ।

২০ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে এর বার্ষিক কার্বন নির্গমন প্রায় তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এটি এখন বিশ্ব উষ্ণায়নের সাথে যুক্ত বিশ্বের মোট গ্রিনহাউস গ্যাসের প্রায় এক তৃতীয়াংশ।

বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্লোবাল ডেভেলপমেন্ট পলিসি সেন্টার বলেছে, চীনা বিদেশি বিনিয়োগের সাথে জীবাশ্ম জ্বালানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি প্রতি বছর প্রায় ৩১৪ মিলিয়ন টন সিও২ নিঃসরণের দিকে যাচ্ছে।  

আন্তর্জাতিক জলবিদ্যুৎ সমিতির মতে, চীন বিশ্বব্যাপী জলবিদ্যুতের বৃহত্তম উৎপাদক এবং বিশ্বব্যাপী প্রবৃদ্ধির অর্ধেকেরও বেশি।

চীন গত বছর নতুন জলবিদ্যুৎ উৎপাদনে ১৩.২৩ গিগাওয়াট এবং নতুন সৌর শক্তিতে ৪৮.২ গিগাওয়াট প্ল্যান্ট স্থাপন করেছে বলে জাতীয় জ্বালানি প্রশাসন জানিয়েছে।

বিডিনিউজ২৪/সুনামগঞ্জ মিরর/এসএন

x